সমর ভৌমিকের ৪টি কবিতা

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  01:52 PM, 20 March 2019

অবাধ্য প্রেমিক
~~ সমর ভৌমিক
>>>>>>>>>>>>

অণু আমি প্রেমিক হবো
প্রেমের টানে মনের বানে ভেসে
অজানাকে পিছু ফেলে
আসছি কাছে হেসে
অন্তহীন ভালোবাসা চির নতুন বন্ধনে
অনন্ত কাল ধরে অতৃপ্ত আত্মায়
তোমাকে জড়িয়ে রাখতে
উষ্ণ ভালোবাসার অমৃত পরশে
বিলিন হতে চাই অবাধ্য পেমিক।

অণু আমি প্রেমিক হবো
তোমার সরল চুলের গরল খোপার ভাঁজে
গুঁজে দিয়ে সদ্য ফোটা কুমারী রক্তজবা
তোমার ঠোঁটে লিপস্টিকের স্বাদ নিতে নিতে
এঁকে দিবো সপ্নময় ভবিষ্যৎ
আর উষ্ণতা বিলাসি চুম্বনে চুম্বনে
শরীরে লেপটে যাওয়া ঘামে
শাড়ীর ভাঁজে ভাঁজে অবাধ্য প্রমিক।

অণু আমি প্রেমিক হবো; কেননা
অন্তরালে মানবতার শরীর দেখি
যাতে অনন্য উচ্চতায় তুমি
ভিন্ন এক স্বর্গীয় আবেশ
লোভ লালসাহীন ক্ষমার অদৃশ্য ভূবন তোমার
তুমি হন্তদন্ত হয়ে ছুটে যেতে চাও
পথভোলা পথিকের কাছে; নির্দ্বিধায়
তুমি শরীরী সৌন্দর্যে পূর্ণ
অনন্য সাধারণ সুন্দরী
হাত মুখ চোখ শরীরের গঠন
হাতের নখ আঙ্গুল অমৃত হাসি
পায়ের পাতা পূর্ণ পরিধির শৃঙ্খলিত বূক
তবুও এগুলো আমাকে এতটা ভাবায় না
আমি শুধু সেই অণুর অবাধ্য প্রেমিক।

অণু আমি প্রেমিক হবো; তোমার
শরীরী গন্ধে মাতাল হতে নয়
কিংবা ভরাট যৌবনে ডুবে যেতে
কামুক বুকে মুখ লুকিয়ে ভাসতে চাই না শুধু
গোলাপ গঙ্গার মোহনীয় স্রোতে
আমি দিশেহারা হই
তোমার লাল টুকটুকে ঠোঁটে
উচ্চারিত মানবতার মমতাময়ী শব্দে
প্রাণের জন্য প্রাণ বিলিন করা অন্য অণু
যার বুকের ভেতর আর এক বুক; মানুষের
আমি তাঁর অবাধ্য প্রেমিক।

অণু আমি প্রেমিক হবো
কেননা তুমি মানবিক আত্মার মানবী
তুমি বৈষম্যের কথা বল
তুমি মুক্তির গান গাও
তুমি অচেতনের চেতন
তুমি নির্বাকের সঙা
তুমি নক্ষত্র চাঁদ জোনাকি
তুমি শরীরী উত্তেজনায় ফেটে পড় না
তুমি সঙ্গমের তৃপ্তির চেয়ে ভালোবাসো
রাতে জনতার নিশ্চিন্ত নিদ্রা
তুমি সেই আকাঙ্ক্ষিত নারী;দেবী
আমি তাঁর অবাধ্য প্রমিক।

১৮•০৩•২০১৯;০২:০৩
••••••••○○○••••••••

ঘর
~~ সমর ভৌমিক
<<<<<<<<<

কাল মাঝরাতে বৃষ্টি এসেছিলো অণু
অথচ আমার কোন ঘর নেই
মোবাইল নোটের একটি সাদা পৃষ্ঠায় ভিজেছিলাম
জীবনে ঘর ছিলোনা বলে ঘরেই ছিলাম
ঘাসের কচি ডগার মতো নেচে উঠেছিলো মন
মধ্যরাতের বৃষ্টিতে বিপ্লবী ঠোঁটে দ্বিধার মিছিল
তুমি নেই ঘর নেই কেঁদে উঠে বন্ধন; রিক্তমাঠ।

শব্দ বিলাস ছাড়া আর তেমন কোন স্মৃতি নেই
নেই নিবিড় আলিঙ্গনে চুম্বক চুম্বনস্মৃতি
অথচ আমাদের প্রেম রহস্যাতীত;অবিনশ্বর।
হৃদয়ের আঁচে বেঁচে থাকা আত্মার উষ্ণতা
সঙ্গম ছুঁই নি কখনো; ছিলো না নেশাতোর কাম
সংকল্পে বাসা বাঁধেনি কখনো বৃত্তিয় ব্যাঞ্জন
তবু ঘর নেই সুধাময় বৃষ্টিতে ছড়ানো শূন্যতায়।

পার্থিবতায় আমাদের দায়বদ্ধতা অদৃশ্য
বাঁধনের ইতিহাসে অক্ষয় প্রেম;ভালোবাসা সুতো
শুধু অক্ষম সময়ে ডুবে আছি আমরা
জেগে আছে হৃদয়ে দীর্ঘশ্বাসের উষ্ণ প্রেম
একদিন শংকা হ্রাস হলে উদ্যান জুড়ে বাগান
পরমায়ুর রশি টেনে যদি দ্যাখো বৃষ্টিস্নাত কদম
তুমিও মধ্যরাতের বৃষ্টিতে আমাকে ভিজিয়ে যেইও
ঘাসের কোমল ডগার মতো ভিজতে দিও
ঘরের বাহির আমার ঘরে সবুজ উদ্যানে ।।

১৬•০৩•২০১৯;১৩:০০
••••••••○○○••••••••

অতুষ্টি
~~ সমর ভৌমিক
>>>>>>>>>>>

শানবাঁধাই সেই পুরনো দিঘির ঘাটে বসে
চৈত্রের পড়ন্ত বিকলে
ভেবেছিলাম কথা বলবো তোমার সাথে।

দখিনা হাওয়ার দোলবে দিঘির শান্ত জল
ঝাঁকে ঝাঁকে হাঁসের সাঁতার
ঝরা পাতার মর্মর শব্দের আর্তনাদ
মুছে দিবে কোকিলের স্নেহময়ী সঙ্গীতে।

বুক পকেটে সাজিয়ে আনবো কথামালা
খোপায় রক্তজবা গুজে কথার দুয়ার খুলবো
রক্তজবা ঘ্রাণ ছড়াবে ভালোবাসার
কথামালার ভাঁজে ভাঁজে তোমার স্পর্শে
দাগ কাটবে মনের গভীরের মনে।

চোখের কপাট খুলে শব্দহীন কথা হবে কিছুক্ষণ
মৌনতায় মৌনতা জড়িয়ে আবেগের বাড়ী
অনুভূতির বিনিময়ে নিরব উষ্ণতায়
দীর্ঘশ্বাসে দীর্ঘশ্বাসে হবে মত বিনিময়।

অণু, নীরব কথোপকথনে তোমার মনে হবে
গোপন কালিতে লিখা আমাদের গল্প
আমাদের গোপন প্রেমের উপাখ্যান
সময়ের গর্ভে সময় হারালে হবে আরো মুল্যবান।

তুমি ইচ্ছে করলেই বলতে পারো অণু
আমাদের ইচ্ছেটাই হৃদয়ের একান্ত গল্প
রাগহীন ঘৃনা হীন কোন বসন্ত পিয়াস
স্বর্ণালী অবয়বে প্রেমের নশ্বর বার্তা ।

তবু আমার ইচ্ছে করে একবার বসি মুখোমুখি
শানবাধাঁই সেই পূরূনো দিঘির ঘাটে
তোমার অনুভূতি ঘিরেই প্রতিজ্ঞা সাজাই
পাঠাই তোমার অন্তরের অন্তঃপুরে।।

১৫•০৩•২০১৯;১২:১৫

অযাচিত অস্বস্তি
~~ সমর ভৌমিক
>>>>>>>>>>>>

অণু, আমার কল্পরাজ্য তুমি আদর্শ নারী
তবু কখনও মনেহয় তোমার স্নেহ অত্যন্ত ভঙ্গুর
কখনও মনেহুয় অতিমাত্রায় শক্তিশালী হৃদয়
আমি বিভ্রান্ত হই বারংবার
আমি সিদ্ধান্তে দোলা খাই
কখনো ঢেউ গুলো দুরে চলে যায়
কখনো দানব গতিতে আঘাত করে তীরে।

অণু, তুমি নারী; অদ্বৈত সংবেদনশীল
একদিন মা। কোন আত্মার নিখুঁত শিল্পী
একদিন আমার স্বপ্ন কুমারী প্রেয়সী
একদিন পৃথিবীর কোন শ্রেষ্ঠ সম্পর্ক
অথচ আমি আজও তোমাকে বুঝতে পারিনি
তোমাকে শিখে নিয়ে উপভোগ করতে পারিনি; সময়ের ব্যবধানে সেরা সময়
তোমার নিরাপদ স্থান খুঁজে দিতে পারিনি
জানতে পারিনি তোমার সেরা উৎসব।

অণু তোমাকে এতটাই চর্চা করি
অথচ কতটাই না অদক্ষ ভারসাম্যহীন এখনো
তোমার শব্দে লাফিয়ে উঠে বুক, হৃদয়, অন্তর
অথচ বুঝিনা তোমার ঠোঁট কখন কি ছবি আঁকে।

অণু সত্যিই তুমি আমার কল্পরাজ্যে অদ্বৈত নারী
তবু কখনো মনে হয় নিছক নাটকীয়তা
কখনো মনেহয় ভালোবাসার সংজ্ঞায় আমি বিরক্তিকর
আমি জানি তোমাকে পরিবর্তন করার কেউ নেই
বিশ্বাস করি তোমার হ্যা বলা শব্দে না অর্থ নেই
কিন্তু যখন চোখে হ্যা বলে আমার কোন শব্দ গ্রহন কর
তখন কোন অস্থিরতা যদি বাসা বাঁধে !!
নানান ভাবনায় আজো আমি ধুঝতে পারিনি।

অণু কখনো তুমি চিন্তিত হতে চাও
কখনো তুমি না বুঝা বাক্য নিয়ে ভাবো
কখনো তোমার চাওয়া গুলো বলতে গিয়ে থেমে যাও
কখনো উদীয়মান সংগ্রামীর মতো
কবজ ভাঙ্গার কথা বলতে চাও
কখনো নিরবতায় কোন কিছু বুঝাতে চাও
কখনো নরোম দৃঢ় হাতে আমাকে স্পর্শ কর
কখনো শান্ত শব্দে হৃদয়ের পৃষ্ঠা ছুঁয়ে দাও
আমি হতাশা অতিক্রম করি নির্ধিদ্বায়
তবু আমি আজো বুঝতে পারিনি তোমাকে।

অণু আমার কল্পরাজ্যে তুমি নিশ্চই অদ্বৈত নারী
সেই ভাবনা থেকে ভালোবাসি, ভালোবাসি
আমি জানি রাত গভীরে একাদিক সঙ্গম তুমিও চাও
এ ও জানি ভোরের আলিঙ্গনে কৃপনতা হবেনা তোমার
আবার দুষ্টু দুষ্টু বলে শাসন করতেও ছাড়বে না
যদিও ছন্দের ভাবনার ভিতর আর এক ছন্দ
তবু আমি বুঝতে পারিনা তোমাকে;
অথবা তোমার নিবেদিত প্রেম।
নানান সঙ্গত ভাবনায় অসন্তুষ্ট মন
অতঃপর আমাকে তোমার সঙ্গী করে নিও।

অণু যদি তুমার ইচ্ছে জাগে কখনো জেনে নিও
কিভাবে আমি কতটা একা হতে জানি !
তুমি একত্রীকরণের আনন্দ দিতে পারো
গভীর ভাবে আমাকে অনুভব করতে পারো
আমার ভিতর কিছু অনুমান করতে পারো
বিশ্বাস করতে পারো ভালোবাসার জন্য জন্মেছি
সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে প্রেম শিখাতে পারো
নেতৃত্ব নিতে পারো জগতের, জীবনের।

অণু, আমি সেই নারীকে তোমার মধ্যে দেখি
যিনি দান করেন এবং দান গ্রহন করেন
দেখি সেই নারীকে –
যাঁর ঠোঁটে সঙ্গীত, বুকে প্রজাতির রং, হৃদয়ে ফুলের সুগন্ধি
দেখি সেই নারীকে –
যাঁর আচরণে, মননে মানবিক সৌন্দর্য
আমি নির্ধিদ্বায় তোমার প্রশংসা করতে চাই
জানাতে চাই অজস্র অফুরান শুভকামনা
অথচ অযাচিত ভাবনার জালে জড়িয়ে
তোমাকে আজও বুঝতে পারিনি।

১৪•০৩•২০১৯;০৮:৩৫

বাংলাদেশ

আপনার মতামত লিখুন :