ময়মনসিংহে সিএনজি চালক হত্যায় ৩ জনের মৃত্যুদন্ড

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  05:33 PM, 10 March 2019

ময়মনসিংহ সংবাদদাতা: জেলার ভালুকায় সিএনজি চালক শফিকুল ইসলাম (৩৫) হত্যা মামলায় তিনজনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রোববার দুপুরে ময়মনসিংহের ১ম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক ইকবাল হোসেন এই রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছে, ত্রিশাল উপজেলার উজানপাড়া গ্রামের আব্দুল হালিমের ছেলে জিয়াউল হাসান (২৫), ভালুকা উপজেলার ছোটকাশর গ্রামের আফাজ উদ্দিনের ছেলে ইসমাইল হোসেন (২৪) ও গাজীপুরের শ্রীপুর থানার গলদা গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের ছেলে সুরুজ মিয়া (২৫)। এদের মধ্যে জিয়াউল ও ইসমাইল কারাগারে এবং সুরুজ পলাতক রয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১১ সালের ১২ মার্চ বিকেলে যাত্রীবেশে ভালুকা উপজেলার কাঁচিনা বাজারের আবুল হোসেনের ছেলে শফিকুল ইসলামের সিএনজিচালিত অটোরিকশা ভাড়া নেন তিন যাত্রী। এরপর উপজেলার জামিদিয়া মাস্টারবাড়ি এলাকার বিলাইজুড়া খালে নিয়ে রাতে তাকে দড়ি দিয়ে বেঁধে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধ করে মৃত্যু নিশ্চিত করে সিএনজি নিয়ে পালিয়ে যায় ওই তিন যাত্রী। পরদিন স্থানীয়রা শফিকুল ইসলামের মরদেহ খালের পানিতে ভাসতে দেখে পরিবারের লোকজন ও পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। এ ঘটনার পরদিন ১৩ মার্চ শফিকুলের বাবা আবুল হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে ভালুকা মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে পুলিশ অন্য একটি মামলায় ইসমাইল হোসেনকে গ্রেফতার করলে সিএনজি চালক শফিকুল হত্যার রহস্য বেরিয়ে আসে এবং আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন ইসমাইল। এরপর পুলিশ জিয়াউল হাসানকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করলে তিনিও হত্যার ঘটনা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। এরপর পুলিশ গ্রেফতারকৃত দুইজন ও পলাতক একজনকে আসামি করে চার্জশিট দাখিল করে। আদালত দীর্ঘ সাক্ষ্য-প্রমাণ গ্রহণ শেষে আজ এই রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে এবিএম নুরুজ্জামান খোকন এবং আসামিপক্ষে বিশ্বনাথ পাল মামলাটি পরিচালনা করেন।

ময়মনসিংহ বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :