মণিরামপুরে বাল্যবিয়ের অপরাধে বরসহ দু’জনের জরিমানা

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:17 PM, 13 March 2019

আব্দুর রহিম রানা: যশোরের মণিরামপুরে ৮ম শ্রেণিতে অধ্যায়নরত ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করার অভিযোগে বুলবুল আহমেদ নামে এক যুবককে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে বিয়েতে সহযোগিতার অভিযোগে ছাত্রীর বড় ভগ্নিপতি আলমগীর হোসেনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
বুধবার বিকেলে আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসান এই জরিমানা করেন। এসময় উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মৌসুমী আক্তার ও সার্ভেয়ার আব্দুল মান্নান উপস্থিত ছিলেন।
এরআগে কনের নানা আব্দুর রশিদের অভিযোগের ভিত্তিতে আদালত পৌর শহরের দূর্গাপুরের একটি ভাড়া বাড়ি থেকে বুলবুল ও স্কুল ছাত্রীকে আটক করে। গত একমাস ধরে তারা ওই বাসাটি ভাড়া নিয়ে থাকতেন। পড়ুন>>> মণিরামপুরে ৩টি দোকান পুড়ে ছাই
বুলবুল আহমেদ উপজেলার জয়পুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে। তিনি শাহ সিমেন্ট কোম্পানির মণিরামপুর উপজেলা বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত। বুলবুল ২০১৪ সালে যশোর সরকারি এমএম কলেজ থেকে অর্থনীতি বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। আর মেয়েটি উপজেলার রাজগঞ্জ শহীদ স্মৃতি বালিকা বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী।
কনের নানা আব্দুর রশিদ বলেন, সিমেন্ট বিক্রি করতে গিয়ে কোমলপুর বাজারের ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেনের সঙ্গে পরিচয় হয় বুলবুলের। পরে আলমগীরের মাধ্যমে নাতনীকে মোবাইলে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বুলবুল। প্রায় এক মাস সম্পর্ক করার পর গত ৪ ফেব্রুয়ারি নাতনীকে ফুসলিয়ে বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে যায় বুলবুল। নাতনীকে ফিরে পেতে ৭ মার্চ ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী বরাবর অভিযোগ দায়ের করি। বুলবুল বলেন, তিনি মেয়েটিকে কেশবপুরে এক কাজী অফিসে নিয়ে বিয়ে করেন। এরপর তারা মণিরামপুর বাজারে ভাড়া বাসায় উঠেন। পড়ুন>>>বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হচ্ছেন শাহীন চাকলাদার
আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসান বলেন, বাল্য বিয়ের দায়ে বুলবুলকে ত্রিশ হাজার টাকা ও বিয়েতে সহযোগিতার অভিযোগে কনের দুলাভাইকে বিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মুচলেকা নিয়ে কনেকে তার মায়ের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে।

 

খুলনা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :