ঘর ভাঙার নির্দেশে চিন্তার ভাঁজ বৃদ্ধ ফজলুর কপালে

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:35 PM, 11 March 2019

শরণখোলা সংবাদদাতা: ফজলুর রহমান (৭৮)। পেশায় দিনমজুর। বয়সের ভারে অনেকটা শক্তিহীন হয়ে পড়েছেন। গায়ে (শরীরে) আগের মতো শক্তি না থাকায় এখন আর তেমম শ্রম বিক্রি করতে পারেন না। তার পরও জীবনযুদ্ধে হার মানতে নারাজ তিনি। জীবিকার প্রয়োজনে এখনও দিনমজুিরর কাজ করে সংসার নির্বাহ করেন। পড়ুন>>>ক্ষতিপুরণের দাবিতে মোড়েলগঞ্জে মানববন্ধন
সম্প্রতি বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে ৩৫/১ পোল্ডারের ৭৬ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু হওয়ায় শরণখোলা মোড়েলগঞ্জের দুই উপজেলার কয়েক হাজার মানুষের বসত ভিটা ও গৃহক্ষতির মুখে পড়ে। যা থেকে বাদ পড়েননি বৃদ্ধ ফজলুও। বসত ঘর ভাঙ্গার নির্দেশে নতুন করে ফজলুর রহমানের কপালে চিন্তার ভাজ পড়েছে। ৩০/৩৫ বছর ধরে বেড়িবাঁধের পাশে স্ত্রী, সন্তানদের নিয়ে বসবাস করে আসলেও মাথা গোজার সেই ঠাই টুকু এখন ছেড়ে দিতে হচ্ছে তার। তবে বাঁধ নির্মাণ সংশ্লিষ্টরা অসহায় পরিবারগুলোর তালিকা তৈরি করে ক্ষতিপুরণ দেয়ার আশ্বাস দিলেও দুই উপজেলার কয়েক হাজার পরিবার এই পর্যন্ত তাদের ক্ষতিপুরলের অর্থ না পেয়ে চরম হতাশায় দিন পার করছেন। তারা পুন:র্বাসন ও ক্ষতিপুরণ দােিত নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে।

পড়ুন>>>ঘুমন্ত শিশুকে চুরি করে ১০ লাখ মুক্তিপণ দাবি করে ফোন
সোমবার শরণখোলা ও মোড়েলগঞ্জের শ’ শ’ অসহায় পরিবার সকাল সাড়ে ১০টায় মোড়েলগঞ্জ উপজেলার খাউলিয়া ইউনিয়নের পল্লি মঙ্গল বাস স্টান্ডে মানববন্ধন করেন। এতে বৃদ্ধ ফজলুর রহমানের মতো অনেক অসহায় পরিবারের নারী পুরুষ অংশ নেন। পাশাপাশি খাউলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার আবুল খায়ের ও শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা ইউপি চেয়ারম্যান সাংবাদিক আসাদুজ্জামান মিলনসহ মুক্তিযোদ্ধা সুশিল সমাজের নেতারাও ওই মানববন্ধনে অংশ নিয় অসহায় পবিরার গুলোর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন। এ সময় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলো অভিযোগ করে বলেন, কিছু অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীর মন রক্ষা করতে না পারায় তারা গত ৩ বছরেও ক্ষতিপুরণের টাকা পাননি। অচিরেই তাদের ক্ষতিপুরণসহ পুন:র্বাসনের দাবি মানা না হলে ধারাবাহিক কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামবেন তারা। এ সময় আওয়ামীলীগ নেতা মাস্টার আবুল খায়ের ও সাংবাদিক আসাদ্জ্জুামান মিলন অসহায় পরিবার গুলোর পক্ষে সরকারসহ সংশ্লিষ্ট মহলের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

খুলনা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :