সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত:নড়াইলে ৩ বন্ধুর দাফন সম্পন্ন

30

নড়াইল প্রতিনিধি:ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে তারা মোটরসাইকেলে গিয়েছিলেন পদ্মা সেতু দেখতে কিন্তু সড়কেই ঝরে গেল ৩ বন্ধুর প্রাণ। তাদের সবার বাড়ি নড়াইলে। মঙ্গলবার (১৮ মে) সকাল ১০টায় নড়াইল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। পরে পৌরসভা কবরস্থানে ৩ বন্ধুর মরদেহ দাফন করা হয়।
উল্লেখ্য, পদ্মা সেতু দেখে বাড়ি ফেরার পথে নড়াইল-মাওয়া-ঢাকা সড়কের ফরিদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বন্ধুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।
তারা হলেন-নড়াইল শহরের মহিষখোলা এলাকার জিএম নজরুল জমাদ্দারের ছেলে তুর্য জমাদ্দার (২২), গাজী আমিনুর রহমানের ছেলে গাজী রাউফুর রহিম (২৩) ও আলাদপুর এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে শাহীনুর রহমান সান (২৩)। তারা সবাই বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে অধ্যায়ন করতেন।
নিহত রাউফুর রহিমের চাচা গাজী মাহফুজুর রহমান জানান, ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে ৮ বন্ধু মিলে পাঁচটি মোটরসাইকেলে সোমবার দুপুরের পর পদ্মা সেতু দেখতে যায়। সেখান থেকে ফেরার পথে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নড়াইল-মাওয়া-ঢাকা সড়কের ফরিদপুরের নগরকান্দার পুকুরিয়া নামক স্থানে পৌঁছালে পেছন থেকে একটি অ্যাম্বুলেন্স তাদের ধাক্কা দেয়। এতে তারা পড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই রাউফুর রহিম ও তূর্য নিহত হন। স্থানীয়রা গুরুতর আহত সানকে উদ্ধার করে প্রথমে মোকসেদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে নেন। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন চিকিৎসকরা কিন্তু হাসপাতালের পথেই সান মারা যান।
ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ওসি ওমর ফারুক তিনজন নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনার পর আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। স্থানীয়রা কেউ বলছেন মাইক্রোবাস, আবার কেউ বলছেন অ্যাম্বুলেন্সের সঙ্গে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। তবে সেই যানবাহন ও তার চালককে আটক করা সম্ভব হয়নি।