শেষ ইচ্ছে পূরণ হলো কবরীর

16

ত ২৪ মার্চ ডাবিংয়ের মাধ্যমে নিজের পরিচালিত দ্বিতীয় ছবি ‘এই তুমি সেই তুমি’র শুটিং শেষ করেন বাংলা চলচ্চিত্রের ‘মিষ্টি মেয়ে’ খ্যাত নায়িকা সারাহ বেগম কবরী। এ ছবির প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন নতুন দুই মুখ রিয়াদ রায়হান ও নিশাত সালওয়া। পরিচালনার পাশাপাশি কবরী নিজেও এখানে গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তার স্বামীর চরিত্রে রয়েছেন মঞ্চ অভিনেতা ও নাট্যনির্দেশক ড. মোহাম্মদ বারী। আরও খবর>>বাবা দুই মা ও ১২ ভাই-বোন নিয়ে যেমন ছিল কবরীর সংসার

‘এই তুমি সেই তুমি’-এর মাধ্যমে দীর্ঘ ১৫ বছর পর সিনেমা পরিচালনা করেছেন কবরী। ২০০৫ সালে ‘আয়না’ নামের একটি ছবি নির্মাণের মাধ্যমে তিনি পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। সেই ছবিতে তিনি অভিনয়ও করেন। তবে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ছবি ‘এই তুমি সেই তুমি’ নিয়ে কবরীর স্বপ্ন ছিল অন্যরকম। সরকারি অনুদানে নির্মিত এই ছবিকে তিনি বিশ্বের বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র উৎসবে পাঠাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু জীবনের সেই ইচ্ছা অপূর্ণ রেখেই চলে গেলেন ‘সারেং বউ’।


এই তথ্য প্রকাশ করেছেন কবরী পরিচালিত দ্বিতীয় ও শেষ ছবি ‘এই তুমি সেই তুমি’র নায়িকা নিশাত সালওয়া। তিনি বলেন, ‘গত ২৪ মার্চ আপার সঙ্গে ডাবিং করলাম। কত আড্ডা হলো, আপা সিনেমাটি নিয়ে তার স্বপ্নের কথা বললেন আমাকে। সিনেমাটি বিশ্বের বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র উৎসবে পাঠাবেন বলে আমাকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু ওনার শেষ ইচ্ছাটা পূরণ হলো না।’

গত বছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর দিনে শুরু হয়েছিল ‘এই তুমি সেই তুমি’র শুটিং। এরপর করোনার কারণে আটকে যায় শুটিং। ছয় মাসেরও বেশি সময় কাজ বন্ধ থাকার পর গত মার্চে আবারও অন হয় ‘এই তুমি সেই তুমি’র লাইট-ক্যামেরা। এ সিনেমার গল্পে মুক্তিযুদ্ধের সময়কার সঙ্গে বর্তমান সময়কে প্রেমের আদলে তুলে ধরা হয়েছে। এর সংগীত পরিচালনা করেছেন দেশের খ্যাতিমান গায়িকা সাবিনা ইয়াসমিন।

 

প্রসঙ্গত, মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার দিনগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে রাজধানীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান অভিনেত্রী, পরিচালক ও রাজনীতিক কবরী। ৭০ বছর বয়সী এ অভিনেত্রীকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। গত ৫ এপ্রিল তার করোনা পজিটিভ আসে। সেদিন রাতেই তাকে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

৭ এপ্রিল রাতে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা তাকে আইসিইউতে নেয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু কুর্মিটোলা হাসপাতালে কোনো আইসিইউ বেড খালি না থাকায় ৮ এপ্রিল দুপুরে কবরীকে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থা আরও খারাপ হলে তাকে লাইফ সাপোর্ট নেয়া হয়। শুক্রবার দিনগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে অভিনেত্রীকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

কবরীর মরদেহ বর্তমানে গুলশান ২-এর বাসায় রয়েছে। আজ শনিবার জোহরের নামাজ বাদ হবে তার জানাজা। এরপর তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে। কিংবদন্তি এই অভিনেত্রী ও রাজনীতিকের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। এছাড়া শোক জানিয়েছেন নাটক ও চলচ্চিত্রের বহু তারকা। তবে শোক জানাতে পারেননি তার সারেং অর্থাৎ নায়ক ফারুক। তিনি বর্তমানে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।