শরণখোলায় ভাইকে ফাঁসাতে নিজের শিশু সন্তানকে পুকুরে ফেলে হত্যা:পিতা আটক

8

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি:বাগেরহাটের শরণখোলায় চার মাসের শিশু কন্যাকে পানিতে ফেলে হত্যার অভিযোগে তারই পিতাকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে (রোবরার) সন্ধ্যাায় উপজেলার দক্ষিন তাফাল বাড়ী গ্রামে।
৫ মার্চ (সোমবার) নিহত শিশু নুপুর আক্তারের মা মারুফা বেগম (৩০) শরণখোলা থানায় তার স্বামী আব্দুল মজিদ মোল্লাকে (৪০) অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-০৬। পুলিশ ইতিমধ্যে পাষন্ড ওই পিতাকে আটক করেছে। শরণখোলা থানার ওসি (তদন্ত) মো. মফিজুর রহমান শেখ জানান, জমিজমা নিয়ে মজিদ মোল্লার সাথে তার আপন বড় ভাই আব্দুর রশিদ মোল্লার বিরোধ থাকায় তাকে ফাঁসানোর জন্য দীর্ঘ দিন ধরে নানা পরিকল্পনা করতে থাকেন মজিদ। তারই ধারাবাহিকতায় রোববার সন্ধ্যায় স্ত্রী মারুফা বেগম শিশুটিকে রেখে জরুরী কাজে পার্শবর্তী তাফালবাড়ী বাজারে যান। এই সুযোগে মজিদ নুপুরকে পাশের একটি পুকুরে ফেলে দেন। পরবর্তীতে তার বড় ভাই রশিদ ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে শিশু হত্যার অভিযোগ তোলেন। এক পর্যায়ে মারুফা বেগম বাড়িতে এসে তার মেয়েকে না দেখে স্বামী মজিদের নিকট জানতে চান। এ সময় তিনি বলেন, নুপুরকে রশিদের বাড়ির লোকজন পুকুরে ফেলে দিয়েছে। পরে মারুফা পুকুর থেকে নুপুরকে উঠিয়ে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইদুর রহমান জানান, ইতিমধ্যে অভিযুক্ত পিতা মজিদ মোল্লাকে আটক করা হয়েছে। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ওই শিশুটিকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।