শরণখোলায় নির্বাচনকে ঘিরে সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা

18

>>ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়া নিয়ে তৃণমূলে কোন্দল
শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি:আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে বাগেরহাটের শরণখোলায় আওয়ামী সমর্থকদের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ্ব ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর গত তিন দিনের ব্যবধানে একাধিক মেম্বার প্রার্থীর নেতৃত্বে হামলা পাল্টা হামলায় উভয় গ্রুপের কমপেেক্ষ ৫৫জন নেতা-কর্মী রক্তাক্ত জখম হয়েছেন। পাশাপাশি সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার উত্তর সোনাতলা গ্রামের দুইটি দোকানে আগুন দেয়ার ঘটনায় সাধারণ ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশ নিয়েও শংঙ্কা প্রকাশ করছেন অনেকে।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, আধিপাত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১৯ মার্চ সকালে উপজেলার ৪নং-সাউথখালী ইউনিয়নের উত্তর সোনাতলা গ্রামের ১নং সোনাতলা ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী জাহাঙ্গীর হাওলাদারের নেতা-কর্মীদের সাথে একই ওয়ার্ডের প্রতিদ¦ন্ধী প্রার্থী মো. শফিকুল ইসলাম ডালিমের নেতা কর্মীদের সাথে এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এছাড়া একই দিন উত্তর সাউথখালীর মেম্বার প্রার্থী মো. সাইফুল ইসলাম হালিম ও প্রতিদ¦ন্দ¦ী প্রার্থী আল-আমিনের সর্মথকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়গ্রুপের প্রায় ৫৫ জন নেতা-কর্মী রক্তাক্ত জখম হন । এ ঘটনায় প্রার্থী জাহাঙ্গীর হাওলাদার বাদী হয়ে ডালিম গ্রুপের ৪০ নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে শরণখোলা থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অপরদিকে, উত্তর সাউথখালী ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী সাইফুল ইসলাম হালিম আল-আমিন গ্রুপের ২৫ সর্মথকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ওই ঘটনার জের ধরে (শুক্রবার) রাতে সোনাতলা এলাকার দুটি দোকান ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। এছাড়া, ১৮ মার্চ (বৃহস্পতিবার) সকালে উপজেলার উত্তর রাজাপুর ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী জাকির হোসেন খানের কর্মী আব্দুল হালিম গাজীকে লাঞ্ছিত করে তার দোকন বন্ধ করে দেন প্রতিপক্ষ প্রার্থীর সমর্থকরা।
শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইদুর রহমান জানান, সোনাতলা ও উত্তর সাউথখালী এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় ইতিমধ্যে থানায় পৃথক দুইটি মামলা রেকর্ড করা হয়েছে এবং পুলিশের নজরদারী বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে নির্বাচনকে পুঁজি করে কেউ পরিবেশ উত্তপ্ত করার চেষ্টা করলে সে যেই হোক না কেন তাকে ছাড় দেয়া হবে না।