যশোর সদর ও পৌর ছাত্রলীগকে বিতর্কিত করার অভিযোগ

59

জেমস আব্দুর রহিম রানা:গত ৩১ আগস্ট শহরের দড়াটানায় যশোর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের ব্যানার ব্যবহার করে সংগঠনকে বিতর্কিত করা হয়েছে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়েছেন নেতৃবৃন্দ। এতে বলা হয়েছে, যশোরের রাজনীতিতে ‘বয়কট’ হওয়া আনোয়ার হোসেন বিপুল সংগঠনকে বিতর্কিত করতে ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্স ও শোকসভা নামে একটি প্রোগ্রাম করে।’ এতে যশোর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ ও পৌর ছাত্রলীগের ব্যানার ব্যবহার করা হয়েছে। কেন্দ্রের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নামের স্থলে ব্যানারে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদকে রাখা হয়েছে। যশোর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক, যুগ্ম আহবায়কসহ কমিটির নেতারা কেউ কর্মসূচি বিষয়ে অবহিত নয়।
ছাত্রলীগ যশোর সদর উপজেলা শাখার আহবায়ক এম এম রবিউল ইসলাম এবং যুগ্ম আহবায়ক জাবেদ উদ্দিন ও মুমেল হোসেন সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন, দীর্ঘ এক বছর পাঁচ মাস যশোর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি না থাকায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনায় সদর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক ও যুগ্ম আহবায়ক সম্মিলিতভাবে করোনাকালীন মানুষের সেবা ও কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। গত ৩১ আগস্ট যশোরের রাজনীতিতে বিতর্কিত ব্যক্তি আনোয়ার হোসেন বিপুল যশোর দড়াটানা ভৈরব চত্বরে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের ব্যানার ব্যবহার করে অনুষ্ঠান করায় সংগঠন বিতর্কিত হয়েছে। ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্সের ব্যানারে কেন্দ্রসহ দেশের সব ইউনিটের ব্যানারে প্রধান অতিথি শেখ হাসিনা থাকলেও যশোরের ওই বিতর্কিত অনুষ্ঠানে কাজী নাবিল আহমেদের নাম ব্যবহার উচ্চমাত্রায় তোষামোদির ইঙ্গিত দিচ্ছে। নেতৃবৃন্দ এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।
এছাড়া রেজওয়ান হোসেন মিথুনকে ছাত্রলীগ নেতা বলা হলেও তিনি যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের ৫৬৫২ নম্বর সদস্য। শ্রমিকনেতা কেউ ছাত্রলীগ নেতা হতে পারে না।