যশোরে শ্বশুরবাড়িতে জামাই;র মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  11:22 PM, 04 March 2019

এবিসি নিউজ: শ্বশুর বাড়ি গিয়ে রুস্তম আলী (৩৫) নামে এক ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে অসুস্থ্য অবস্থায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনলে চিকিৎসক শফিউল্লাহ সবুজ তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি স্ত্রীকে আনতে শ্বশুরবাগিতে গিয়েছিলেন।
মৃত রুস্তম আলি যশোর সদর উপজেলা কাশিমপুর বিশ্বাসপাড়া গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে।

মৃতের স্বজনদরে দাবি, রুস্তম আলীকে শ্বাসরোধে করে হত্যার পর শ্বাশুর বাড়ির লোকজন মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করেছে। তবে শ্বশুর বাড়ির লোকজনের দাবি, স্ত্রী তার সাথে যেতে রাজি না হওয়াই কীটনাশক পানে করে রুস্তম আত্মহত্যা করেছেন।
মৃতের চাচা আমির হোসেন জানিয়েছেন, ৯ মাস আগে পারিবারিকভাবে রুস্তম আলীর সাথে একই ইউনিয়নের ডাকাতিয়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের মেয়ের বিয়ে হয়। রোববার দুপুরে স্ত্রীর সাথে রুস্তমের সাংসারিক বিরোধ হয়। এক পর্যায় বিকালে তার স্ত্রী বাপের বাড়ি চলে যায়। বিকাল পাঁচটার দিকে রুস্তম আলী স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনতে শ্বশুর বাড়িতে যান। কিন্তু স্ত্রী আসতে চায়নি তার সাথে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে শ্বশুর বাড়ির লোকজন রুস্তমকে যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের নিয়ে আসেন। খবর পেয়ে স্বজনরা হাসপাতালে এসে মর্গে রুস্তমের লাশ পান। আমির হোসেন আরও জানান, হাসপাতালে জরুরি বিভাগ থেকে জানানো হয় কিছু লোক মৃত অবস্থায় জরুরি বিভাগে রেখে গিয়েছে। পরে চিকিৎসক অজ্ঞাত হিসাবে মৃত ঘোষণা করে মর্গে লাশ প্রেরণ করেন।
মৃতের চাচা আমির হোসেন অভিযোগ, রুস্তম আলী কীটনাশক পানে আত্মহত্যা করেনি। শ্বশুর বাড়ির লোকজন শ্বাসরোধ হত্যা করে তার মুখে কীটনাশক ঢেলে দিয়েছে।
জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শফিউল্লাহ সবুজ জানিয়েছেন, হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। মৃতের কোন লোকজন না থাকায় অজ্ঞাত পরিচয়ে মৃত ঘোষণা করে মর্গে প্রেরণ করা হয়।
এসআই হায়াত মাহমুদ জানিয়েছেন, মৃতের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। প্রাথমিক ভাবে বুঝাও যাচ্ছে তিনি কীটনাশক পানে আত্মহত্যা করেছে কিনা। মৃত্যুতে রহস্য আছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরে মৃত্যুর সঠিক কারন বলা সম্ভাব হবে।

খুলনা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :