যশোরে একদিনে ১৪ জনের মৃত্যুর রেকর্ড

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:47 PM, 03 July 2021

>>পাড়া মহল্লাতেও অভিযান চালাবে আইন-শৃঙ্খলনা বাহিনী
এবিসি নিউজ:যশোরে করোনায় ও করোনার উপসর্গ নিয়ে একদিনে ঝরে গেল আরও  ১৪ জনের প্রাণ। পজিটিভ হয়ে ৮ জন এবং উপসর্গ নিয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে-বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। একই সময়ে নতুন করে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন ২৫০ জন। ৭২০ জনের নমুনা পরীক্ষায় এই উল্লেখিতরা শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া যশোর জেনারেল হাপসাতালেও বেড়েছে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গের রোগীর চাপ। ১৪০টি শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি রয়েছেন ২০২ জন।

আজ শনিবার (৩ জুলাই) যশোর সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা ডা. মো. রেহেনেওয়াজ সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলার ৭২০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৫০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে যবিপ্রবির জিনোম সেন্টারেই ৭১৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৫০ জন করোনা পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। খুলনা মেডিকেল কলেজে ৪ জনের নমুনা পাঠানো হলেও সবগুলোই ফলাফল নেগেটিভ।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় জিন অ্যাক্সপার্ট ও র‌্যাপিড অ্যান্টিজেনে কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। আক্রান্তের হার ৩৫ ভাগ। এ সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা ১৬২ জন। জেলায় মোট শনাক্ত হয়েছেন ১৩ হাজার ৩৭ জন। সুস্থ হয়েছেন ৭ হাজার ৪৬৯ জন, জানান তিনি।

এদিকে করোনা রোগীর চাপ আরও বেড়েছে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে। এখানে ১৪০টি শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি রয়েছেন ২০২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৬ জন।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আরিফ আহমেদ গণমাধ্যমকে জানান, করোনায় আক্রান্ত হয়ে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৭ জন। এ ছাড়া উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। যশোর হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত রেড জোনে এখন ভর্তি আছেন ১৩০ জন। এখানে শয্যা সংখ্যা ১১৮।

অন্যদিকে করোনা রোগের উপসর্গ নিয়ে ইয়েলো জোনে ভর্তি রয়েছেন ৭২ জন। এখানে শয্যা সংখ্যা ২২। অর্থাৎ রেড ও ইয়েলো জোনে মোট ১৪০টি শয্যা থাকলেও রোগী ভর্তি রয়েছে ২০২ জন। হাসপাতালের রেড জোনে ২৩ শয্যা বৃদ্ধির প্রক্রিয়া চলছে বলেও তিনি উল্লেখ করেছেন।

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান জানান, যশোরে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে প্রশাসনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে মাঠে সেনাবাহিনী ও বিজিবি সদস্যরাও রয়েছেন।
এদিকে আজ শনিবার যশোরের বিভিন্ন স্থান ঘুরে সকালের দিকে পাড়া মহল্লায় কিছু দোকানপাট খোলা থাকতে দেখা গেছে। এ সময় রিকশা-ভ্যান, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল চলাচল করে। তবে দুপুর ১২টার পর কোন যানবাহন চলতে দেখা যায়নি। দোকানপাটও শহরে বন্ধ দেখা গেছে। যদিও শহরের পাড়া মহল্লার কিছু দোকানপাট দিনভর, এমনকি রাতেও খোলা থাকছে বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে।

এসব পাড়া মহল্লায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অভিযানে নামবে বলে জানা গেছে।

খুলনা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :