মালয়েশিয়ায় মুভমেন্ট কন্ট্রোল অব অর্ডার আইন ভঙ্গের দায়ে বাংলাদেশি শ্রমিক কারাগারে

87

এবিসি ডেস্ক:মুভমেন্ট কন্টোল অব অর্ডার আইন ভঙ্গের অপরাধে এক বাংলাদেশীকে জরিমানা করলেন মালয়েশিয়ার ম্যাজিস্ট্রেট। তাকে আরএম ৫০০ রিংগিত জরিমানা করা হয়েছে। তবে জরিমানা দিতে না পারায় তাকে একদিনের জন্য কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় ২য় ধাপে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় গত ১৩ জানুয়ারি থেকে ৬ প্রদেশে মুভমেন্ট কন্ট্রোল অব অর্ডার জারি করেছে মালয়েশিয়া সরকার। বিশেষ কোন প্রয়োজন ছাড়া স্থানীয় নাগরিকসহ সকল প্রবাসীদের ঘর থেকে বাইরে বের না হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। এই আদেশ জারির প্রথম দিনেই এক বন্ধুর সাথে দেখা বরে হওয়ায় এক বাংলাদেশী নির্মাণ শ্রমিককে জরিমানা দিতে হয়েছে। মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার (পিকেপি) ২.০ অমান্য করে ঘর থেকে বের হয়ে কোয়াতা দামান ছাড়া ঘুরতে দেখে কর্তব্যরত ম্যাজিস্ট্রেট আদালত তাকে আরএম ৫০০ রিংগিত জরিমানা করেন।

বাংলাদেশী প্রবাসী ৩২ বছর বয়সী শাহাবুদ্দিন তার দোষ নিজের মুখে শিকার করায় ম্যাজিস্ট্রেট এম বারাথের তাকে অল্প সাজা দেন! তবে শাহাবুদ্দিন জরিমানা টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় একদিনের জন্য কারাগারে রাখার নির্দেশও দিয়েছেন আদালত।

উল্লেখ, শাহাবুদ্দিনকে ১৩ ই জানুয়ারী দুপুর ২.৩০ মিনিটে জালান , কোটা দামানসারা থেকে সংক্রামিত দমনসারা টোল প্লাজায় যাওয়ার পথে এ ঘটনা ঘটে।

শাহাবুদ্দিন সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ (সংক্রমণের স্থানীয় অঞ্চলে ব্যবস্থা) ২০২১ এর বিধি ৪ (২) লঙ্ঘনের শিকার হয়েছেন যা একই বিধি বিধি ১৬(১) এর অধীনে শাস্তিযোগ্য যা সর্বোচ্চ বহন করে আরএম ১,০০০ এর সাজা বা ছয় মাস বা উভয়ের বেশি কারাদণ্ড।

এরআগে, শাহাবুদ্দিনের প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবী কেনি টান চেং ইয়ে তার মক্কেলকে তার দোষ শিকার করার কারণে তাকে বিনা কারাদণ্ডে হালকা জরিমানা দেয়ার আবেদন করেছিলেন।
গত ১২ দিন ধরে শাহাবুদ্দিন রিমান্ডে ছিলেন। তবে শাহাবুদ্দিনের কোন বৈধ ভিসা না থাকায় সে এখন জেল আছে।