মাদ্রাসা শিক্ষিকার নেতৃত্বে ভাই-বোনের চাকরির ব্যবসা!

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:56 PM, 23 August 2021

>>যশার আদালতে এক ভুক্তভোগীর মামলা:তদন্ত করবে পিবিআই
যশোরে এলজিইডি বিভাগে ও শিক্ষক পদে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে সাড়ে ৯ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় মাদ্রাসা শিক্ষিকাসহ তিনজনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। সোমবার যশোর শহরের বেজপাড়া মেইন রোডের মৃত যোগেন্দ্র নাথ চৌধুরীর ছেলে সুদাম চৌধুরী জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই মামলা করেন। বিচারক মামলাটি তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন।
আসামিরা হলো-সদর উপজেলার পদ্মবিলা গ্রামের মৃত নুরুল ইসলাম সরদারের ছেলে মেহেদি আল মামুন ও তার ভাই আবু জাফর সিদ্দিকি এবং তার বোন পদ্মবিলা ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষিকা সোনালী আক্তার।
বাদী মামলায় উল্লেখ করেছেন, আসামি সোনালী আক্তার ও তার ভাই আবু জাফর তার পূর্বপরিচিত। সোনালী আক্তার বাদীকে জানায় তার ভাই মেহেদি আল মামুন ঢাকাতে থাকে। তিনি বিভিন্ন দপ্তরে চাকরি দিতে পারেন। এছাড়াও বিশেষ ব্যবস্থায় নিবন্ধন সদন তৈরি করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও নিয়োগ দেন। সোনালীর কথা বিশ্বাস করে ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে বাদীর পুত্রবধুকে এলজিইডি’র স্টোর কিপার পদে ও বাদীর পরিচিত চারজনকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেয়ার জন্য চুক্তি হয়। ২০১৭ সালের ২ মে থেকে ২০১৮ সালের ১১ জুন পর্যন্ত সাড়ে ৯ লাখ টাকা তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেন আসামিরা। এরমাঝে তিনজনের চাকরির জন্য আসামিরা তিনটি নিবন্ধন সনদ দিয়েছে। কিন্তু পরে জানা যায় সেইসব নিবন্ধন সার্টিফিকেট জাল। বাদীর পুত্রবধুকেও চাকরি দিতে পারেনি। শেষমেষ সাড়ে ৯ লাখ টাকা ফেরত চাইলে নানা তালবাহানা শুরু করতে থাকে। বাধ্য হয়ে বাদী আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন। এই মামলায় অপর চারজন পাওনাদার স্বাক্ষী হয়েছেন।

 

খুলনা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :