মহেশপুরে আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

12

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি:স্বর্ণালি মুকুল শেষে প্রতিটি গাছে গাছে এখন আমের গুটি দৃশ্যমান। প্রকৃতি অনুকূল হওয়ায় এবার আমের ফলন ভালো হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় আম চাষীরা। এবছর মৌসুমের প্রথম থেকেই আবহাওয়া ভালো। নেই তেমন ঘন কুয়াশা, তাপ প্রবাহ, শিলা বৃষ্টি।
মহেশপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এবছর মোট ৫০০ হেক্টর জমিতে আমের মোট উৎপাদন মাত্রা ধরা হয়েছে ১০ হাজার মেট্রিকটন। কৃষি অধিদপ্তর জানিয়েছেন এবছর আম গাছে যে মুকুল এসেছে তার ১ শতাংশ গুটি থাকলেই বাম্পার ফলন হবে।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি গাছে দানা বেঁধেছে আমের গুটি। স্বর্ণালি মুকুল ঝরিয়ে শাখা-প্রশাখায় দোল খেতে শুরু করেছে সেই গুটি। কুয়াশা কিংবা ঝড় অথবা শিলাবৃষ্টির কোন ধকল এখন পর্যন্ত নেই। গুটিবাঁধা সেই সবুজ দানাতেই এখন স্বপ্ন দেখছেন মহেশপুরের আম চাষিরা। মৌসুমের এই বিশেষ সময়ে গাছের প্রতি তাদের যতœ আরো বেড়ে গেছে।
আম চাষী আবুল হোসেন জানান, এবছরে গাছে ভালো মুকুল এসেছে। প্রথম অবস্থায় দুইবার কীটনাশক দেয়া হয়েছে। এখন মুকুল শেষে ছোট ছোট গুটি এসেছে, তাই আরো কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে। আরেক চাষী জানান, প্রায় গাছেই অনেক মুকুল এসেছে। কীটনাশক প্রয়োগ করেছি। গুটি গুলো নতুন ভাবে বের হচ্ছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার ভালো ফলন হবে বলে আশা করছি।
মহেশপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী জানান, এমৌসুমে আবহাওয়া ভালো থাকায় ফলন ভালো হবে বলে আশা করছি। এখনো কোন প্রাকৃতিক সমস্যা দেখা যায়নি। চাষীরা প্রথম অবস্থায় কীটনাশক প্রয়োগ করেছে। এখন গুটির জন্য মাঝে মাঝে সাদা পানি স্প্রে করতে হবে। প্রতিটি গাছের মুকুলে একটি করে গুটি থাকলেই বাম্পার ফলন হবে বলেও জানান। তিনি আরও বলেন, বারি জাতের আম চাষে পোঁকা মাঁকড় রোধে ব্যাগিন পদ্ধতি ব্যবহার করলে চাষীরা অধিক লাভবান হবে।

 

অভয়নগরে করোনা প্রতিরোধে অভিযান
দুটি বাস
জব্দ ও একটিতে
জরিমানা
অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি ॥ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় যশোরের অভয়নগরে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়েছে। বুধবার (৩১ মার্চ) বিকালে উপজেলা (ভূমি) অফিসের সামনে যশোর-খুলনা মহাসড়কে এই অভিযান চালানো হয়। করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে জনগণের মাঝে মাস্ক বিতরণ করাসহ দুটি যাত্রীবাহী বাস জব্দ ও অপর একটি বাসে জরিমানা করা হয়।
ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, বুধবার বিকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুর রহমানের নেতৃত্বে সাধারণ জনগণের মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়। পরে যশোরগামী (ঢাকা মোট্রা-ব- ১৪-৩৪৮২) ও (ঢাকা মেট্রো-জ- ১১-০৫৪৮) যাত্রবাহী বাসে অতিরিক্ত যাত্রী বহন ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় বাস দুটি জব্দ করা হয়। পরে জব্দকৃত বাস নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করা হয়। এছাড়া যশোরগামী অপর একটি বাসে (সিলেট-জ-০৪-০১৯০) অতিরিক্ত যাত্রী বহনের দায়ে সড়ক পরিবহন আইনের ৭৬ ধারায় পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
অভিযান চলাকালে উপস্থিত ছিলেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) নারায়ন চন্দ্র পাল, ভূমি অফিসের কর্মকর্তা মাহামুদর রহমান, হাইওয়ে থানা পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যবৃন্দ।