মণিরামপুরে প্রতিমার হাত-পা ভাংচুর: পুলিশের ঘটনাস্থল পরিদর্শন

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:08 PM, 07 April 2019

>>>অজ্ঞাত আসামি করে থানায় সভাপতির মামলা 
মণিরামপুর সংবাদদাতা: যশোরের মণিরামপুরে বাসন্তী পূজা উপলক্ষে তৈরি করা বিভিন্ন দেবদেবীর প্রতিমা ভাংচুর খবরে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ সরেজমিন পরিদর্শন করতে গিয়ে ঝড়ের কবলে পড়েন। ঝড়ে যে দোকান ঘরটিতে আশ্রয় নেন সেই দোকানের উপরে ভেঙ্গে পড়ে বটগাছ। অল্পের জন্য পরিদর্শনে যাওয়া পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ প্রাণে বেঁচেছেন। এদিকে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় থানায় মামলা হলেও ঘটনার সাথে জড়িত কেউ আটক হয়নি।
স্থানীয় আরতি, কালিদাস, অর্চনাসহ অনেকেই জানান, চলতি মাসের ১১ এপ্রিল থেকে ৪ দিনব্যাপী বাসন্তী পূজা অনুষ্টিত হবে। এ উপলক্ষে উপজেলার হেলাঞ্চী পুরাতন বাজার সংলগ্ন বাসন্তী পূজা মন্ডপে গণেশ, স্বরসতী, লক্ষী, মহিষাসূর ও সিংহ প্রতিমা তৈরি করা হয়।
মন্দির কমিটির সভাপতি কার্তিক দাস জানান, শনিবারের কোন এক সময় এসব প্রতিমার মাথা ও হাত ভেঙ্গে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। সন্ধ্যায় প্রতিমা ভাংচুর দেখতে পেয়ে তাৎক্ষনিকভাবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ অন্যান্য কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন।
মন্দিরের সেক্রেটারী রণজিৎ বিশ্বাস জানান, অজ্ঞাত ব্যক্তিরা ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে অবমাননাকর করার উদ্দেশ্যে এই ঘটনা ঘটিয়েছে।
খবর পেয়ে যশোর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনছার আলী, মণিরামপুর থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ সহিদুর রহমান, ওসি তদন্ত এসএম এনামুল হক, সেকেন্ড অফিসার তপন কুমার সিংহসহ বিভিন্ন পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তারা সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন।
এদিকে পরিদর্শনে যাওয়া মাত্রই ঝড়ের কবলে পড়ে ওই বাজারের দোকান ঘরে আশ্রয় নেন পুলিশের এসব কর্মকর্তারা। এসময় পাশে থাকা বিরাটাকৃতির একটি বটগাছ ওই দোকান ঘরে ভেঙ্গে পড়ে। এতে অল্পের জন্য ক্ষয়-ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পান তারা। তবে, পুলিশের ব্যবহৃত ৩টি মোটরসাইকেল গাছ চাপায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
মন্দির কমিটির সভাপতি বাদি হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে একটি মামলা করেছেন। এ ব্যাপারে মণিরামপুর থানার ওসি তদন্ত এসএম এনামুল হক জানান, ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় মন্দির কমিটির সভাপতি বাদি হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের নামে থানায় মামলা করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :