মণিরামপুরে প্রতিমন্ত্রী ও এসিল্যাণ্ডের ইতিবাচক সংবাদ বয়কটের সিদ্ধান্ত

92

মণিরামপুর প্রতিনিধি:মণিরামপুরে উন্নয়ন মেলায় সাংবাদিকদের নিয়ে এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য কটুক্তি করায় তাঁর ইতিবাচক সবধরণের সংবাদ বয়কটের নিদ্ধান্ত নিয়েছেন মণিরামপুরের সাংবাদিকরা। একই সাথে সহকারি কমিশনার(ভূমি) পলাশ দেবনাথের ইতিবাচক সংবাদ বয়কট করারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে মণিরামপুর প্রেসক্লাবের জরুরী সাধারণ সভায় উপস্থিত সদস্যদের সর্বসম্মতিতে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। প্রেসক্লাবের সভাপতি ফারুক আহম্মেদ লিটন সভার সভাপতিত্ব করেন।
প্রেসক্লাবের সম্পাদক মোতাহার হোসেনের পরিচালনায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথের বিষয়ে আলোচনা শুরু হলে সর্বসম্মতিক্রমে তাদের পজেটিভ নিউজ বর্জনসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।
সাধারণ সভায় বক্তব্যে উঠে আসে গত ২৮ মার্চ উপজেলা পরিষদ চত্বরে অনুষ্ঠিত উন্নয়ন মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন ‘মণিরামপুরে সরকারের উন্নয়নে বাঁধা দিচ্ছে সাংবাদিকরা’। এ সময় তিনি অত্যন্ত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মণিরামপুরের কিছু তথাকথিত এবং অর্বাচিন সাংবাদিক রাস্তার উন্নয়ন কাজের সময় রাস্তায় একটি আমা ইট পেলেও তা নিয়ে লেখেন। যা উন্নয়ন কাজে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। সভা শেষে প্রতিমন্ত্রী বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন। এসময় প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ প্রতিমন্ত্রীকে তাদের স্টল পরিদর্শনের জন্য অনুরোধ করলে প্রতিমন্ত্রী ক্ষুব্ধ কন্ঠে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দকে গালমন্দ করে বলেন, নিউজ করে যেমন বালু উত্তোলন বন্ধ করেছো, তেমনি নিউজ করে উন্নয়ন কাজও বন্ধ করে দাও। এ সময় তার আচরণে উপস্থিত সকলই হতবাক হন।
অপরদিকে সহকারি কমিশনার(ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথ একটি তুচ্ছ বিষয় নিয়ে সাংবাদিক হারুন অর রশিদের সাথে দৈনিক নওয়াপাড়া পত্রিকা নিয়ে বিদ্রুপ ও তার সাথে অহেতুক দূর্ব্যবহার করেন। ফলে এই ব্যাপারে করণীয় সম্পর্কে মণিরামপুর প্রেসক্লাবে গত শনিবার নির্বাহী পরিষদ এবং সোমবার সাধারণ পরিষদের জরুরী সভা আহবান করা হয়। প্রেসক্লাব সভাপতি ফারুক আহম্মদের সভাপতিত্বে সকল ১০ টা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাহী এবং সাধারণ পরিষদের জরুরী সভায় সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে পরবর্তি নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত এখন থেকে মণিরামপুরে প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এবং সহকারি কমিশনার (ভূমি) পলাশ দেবনাথের সকল অনুষ্ঠান বয়কট করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ বহাল থাকবে। এ সময় বক্তারা বলেন, ঝাঁপা বাওড়ে দুই যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন সম্পর্কে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পর জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসান তা বন্ধ করেন। মুলত: তার পর থেকে প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের ওপর ক্ষুব্ধ হন। যার ফলশ্রুতিতে তিনি সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে কটুক্তি করেন। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে সোমবার প্রেসক্লাবে সাংবাদিকরা এক সাধারণ সভায় মিলিত হয়ে উপরোক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।
সাধারণ সভায় বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য নিছার উদ্দিন খান আযম, সাবেক সভাপতি এস এম মজনুর রহমান, সহসভাপতি আব্দুল মতিন, মনিরুজ্জামান মনির, শাহিনুর রহমান পান্না, বর্তমান সহসভাপতি জিএম ফারুক আলম, প্রভাষক নূরুল হক, যুগ্ম-সম্পাদক আসাদুজ্জামান রয়েল, নির্বাহী সদস্য হোসাইন নজরুল হক, ইউনুচ আলী, মাস্টার আনিচুর রহমান, গীতা রানী কুন্ডু, সাবেক নির্বাহী সদস্য ও সিনিয়র সাংবাদিক আব্বাস উদ্দীন, উৎপল বিশ্বাস, সিনিয়র সাংবাদিক সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ বাবুল আকতার, সাবেক দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য শফিদুর রহমান, রাহাত আলী, জয়নুল আবেদীন, জি.এম টিপু সুলতান প্রমুখ।