বিশ্ব রের্কড গড়তে গাইবান্ধায় ১০ কিলোমিটার সড়ক জুড়ে আলপনা উৎসব শুরু

17

বিশ্বে গাইবান্ধা কে তুলে ধরতে গাইবান্ধা জেলার মেধাবী শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার গাইবান্ধা-সাঘাটা-ফুলছড়ি সড়কের ১০ কিলোমিটার জুড়ে ‘বিশ্বের দীর্ঘতম আলপনা উৎসব’ শুরু হয়েছে।

সুবর্ণ জয়ন্তীতে, আলপনার রঙ্গে মেতে উঠুক আবাল থেকে বৃদ্ধ। আসুন আমরা সকলে শিক্ষার্থীরদের পাশে দাড়াই। ‘দেখাবে গাইবান্ধা, দেখবে দেশ; রেকর্ড করবে বাংলাদেশ’ এই শ্লোগানে আলপনা অঙ্কন উৎসবে মেতে উঠেছে  শতশত শিক্ষার্থীরা।

এবার গাইবান্ধার ১০ কি. মি. সড়কজুড়ে আলপনা অঙ্কন করে বিশ্বে নতুন রেকর্ড (গিনেস বুকে) নাম উঠাতে যাচ্ছে জেলার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। সাথে থাকি বিশ্ব রেকর্ড গড়ি। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্ত ও মুজিববর্ষকে স্মরণীয় করে গিনিস বুকে নাম লেখাতে গাইবান্ধায় একটানা ২৪ ঘন্টায় ১০ কিলোমিটারব্যাপী সড়কে বিশ্বের দীর্ঘতম আলপনা অংকন শুরু হয়েছে উৎসব মুখর পরিবেশে।

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিববর্ষকে স্মরণীয় করে গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম লেখাতে বৃহস্পতিবার গাইবান্ধা-সাঘাটা-ফুলছড়ি সড়কের ১০ কিলোমিটার জুড়ে ‘বিশ্বের দীর্ঘতম আলপনা উৎসব’ শুরু করা হয়েছে।

জেলা শহরের পুলিশ লাইনের সম্মুখ থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি মেডিকেল কলেজ পড়ুয়া গাইবান্ধার শিক্ষার্থীদের সংগঠন পাবলিক ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস্ অ্যাসোসিয়েশন অব গাইবান্ধা (পুসাগ) এর শিল্পীরা দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে আলপনা অংকন শুরু করেন। শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সাঘাটা উপজেলার ভাঙ্গামোড়ের এই ১০ কিলোমিটার সড়কে একটানা ২৪ ঘন্টা আলপনা অংকন সম্পন্ন করবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, ২৪ ঘন্টায় ১০ কিলোমিটার সড়কে আলপনা আঁকা সম্পন্ন করে গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে বিশ্বের দীর্ঘতম অংকিত সড়ক আলপনা হিসেবে স্বীকৃতি পেতে ওই সংগঠনের শিক্ষার্থী শিল্পীরা এই উদ্যোগ নেয়। এব্যাপারে উদ্যোক্তা সংগঠনের সভাপতি হুসেইন মো. জীম, সাধারণ সম্পাদক একে প্রামানিক পার্থ, নির্বাহী সভাপতি ডা: তন্ময় নন্দী, প্রধান সমন্বয়ক চন্দ্র শেখর চৌহান জানান, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী এবং মুজিববর্ষকে সারা বিশ্বে স্মরণীয় করে রাখতেই দীর্ঘ ১০ কিলোমিটার সড়ক জুড়ে এই বর্ণিল নান্দনিক আলপনা অংকনের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। তারা আশাবাদী নির্ধারিত ২৪ ঘন্টার মধ্যেই আলপনা অংকন সম্পন্ন করে গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে গাইবান্ধা জেলার নামটি সংযুক্ত করতে সম্ভব হবে।

বিশ্ব রের্কড করতে এই অসম্ভব সম্ভবনায় অংশ গ্রহন করায় ও উদ্যোগ গ্রহন করার গাইবান্ধা জেলার মেধাবী প্রান গুলোকে আন্তরিক ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেছেন গাইবান্ধা অনলাইন প্রেসক্লাব ।