বিদেশ যেতে হলে খালেদা জিয়াকে ফের জেলে যেতে হবে

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:14 PM, 28 August 2021

আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, বিদেশ যেতে সরকারের কাছে আবেদন করতে হলে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ফের জেলে যেতে হবে। প্রচলিত আইনে এর বাইরে আর কোনো সুযোগ নেই।

 

আজ শনিবার (২৮ আগস্ট) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘ল রিপোর্টার্স ফোরাম ও এমআরডিআই’ আয়োজিত আইন সাংবাদিকতা বিষয়ে এক কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন।

 

কর্মশালায় প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে আলোচনা করেন আইনমন্ত্রী। ফৌজদারি কার্যবিধি নিয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে ৪০১ ধারা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে খালেদা জিয়ার প্রসঙ্গটি তুলে ধরেন তিনি।

আইনমন্ত্রী বলেন, সাজা মওকুফের ক্ষমতা সরকারের আছে। এনিয়ে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় ছয়টি উপধারা আছে। এর মধ্যে একটিতে আছে সরকারের ক্ষমতা, সরকার কী করতে পারে। একজনের সাজা শর্ত ছাড়া সম্পূর্ণ মওকুফ করতে পারে অথবা শর্ত ছাড়া কিছুটা মওকুফ করতে পারে। আবার শর্ত সাপেক্ষে পুরোটা মওকুফ করতে পারে কিংবা কিছুটা মওকুফ করতে পারে বা সাসপেন্ড করতে পারে।

মন্ত্রী আরও বলেন, উপধারা-২ এ বলা আছে, যে কোর্ট সাজা দিয়েছে সেই কোর্ট সাজা মওকুফ করতে পারে, নাও পারে। উপধারাগুলোতে আরো অনেক কথা বলা আছে। এখানে কিন্তু কোথাও বলা নাই। একটা আবেদন যখন নিষ্পত্তি করে ফেলা হয়, সেই আবেদনটিকে আবার পুনরায় রিকনসিডার (পুনবিবেচনা) করতে পারবে। অর্থাৎ নিষ্পত্তিকৃত আবেদনটি পুনবিবেচনা করার কোনো সুযোগ নেই।

মন্ত্রী বলেন, ৪০১ ধারায় সরকারের ক্ষমতা বলা আছে। এই ৪০১ এর সংস্কারের ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে ব্যবহার করা হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এটা ব্যবহার করে। তাতে অবশ্যই প্রধানমন্ত্রী থেকে অনুমতি নিতে হয়। এটা প্রয়োগ করার আগেই রুল অফ বিজনেস অনুযায়ী আইনমন্ত্রণালয় থেকে মতামত নিতে হয়। এমন একটা বিষয় নিয়ে আমার মতামত দিতে হয়েছে।

উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মামলার ক্ষেত্রেও মতামত দিতে হয়েছে। ওনার (খালেদা জিয়ার) আত্মীয় স্বজনের পক্ষ থেকে যখন আবেদন করা হলো, তখন তার সাজা স্থগিত করে ওনাকে শর্ত সাপেক্ষে মুক্তি দেয়া হয়েছে। তার মানে তার পক্ষে যে আবেদনটা ছিল তা নিষ্পত্তি হলো। তারা বিদেশে যাওয়ার অনুমতি চেয়েছিলেন কিন্তু সরকার  অনুমতি দেয়নি। তাকে দুটি শর্ত দিয়ে মুক্তি দেয়া হয়েছে। সেই শর্ত মেনেই তিনি মুক্তি পেয়ে বাড়িতে বসবাস করছেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, এখন পরের ধাপে তারা বিদেশ যেতে অনুমতি চায়, কিন্তু কথা হলো যে আবেদনটি নিষ্পত্তি করা হলো সেটা পুনবিবেচনার ক্ষমতা আইনে আমাদের দেয়া হয়নি। তাহলে ওনাদের কী করতে হবে প্রশ্ন রেখে বলেন তাদের আবার আবেদন করতে হবে। এখন আবার আবেদন করতে হলে আগের আবেদনটি বাতিল করে ওনাকে (খালেদা জিয়া) আবার জেলখানায় গিয়ে আবার আবেদন করতে হবে।

‘এখন এটা তো অলরেডি একবার নিষ্পত্তি হয়ে গেছে। ওনাকে বিদেশ যেতে অনুমতি দেয়ার ক্ষমতা ৪০১ ধারায় উল্লেখ আছে কিন্তু এটা বলা আছে শর্ত সাপেক্ষে। ৪০১ ধারার উপধারাতে আমাদের পুনবিবেচনার কোনো ক্ষমতা দেয়া হয়নি।’

কর্মশালায় আরো বক্তব্য রাখেন, আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম।

ল রিপোর্টার্স ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইয়াছিনের সঞ্চালনায় সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি মাশহুদুল হক।

দিনব্যাপী এই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :