বাগেরহাটে শিশু গৃহপরিচারিকা নির্যাতন চালিয়ে তোপেরমুখে প্রকৌশলী

12

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটে এবার আফছানা আক্তার (০৮) নামের এক শিশু গৃহ পরিচারিকাকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে বাগেরহাট সদর উপজেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রেখা খাতুনের (৪০) বিরুদ্ধে। বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার পঞ্চকরন ইউনিয়নের মৃতঃ আমজাদ হোসেনের মেয়ে আফছানা আক্তার। বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাব্বেরুল হক শিশু আফছানাকে উদ্ধার করে অসহায় শিশুটির সুন্দর জীবন পরিচালনার জন্য সরকারী শিশু পরিবারে রাখার ব্যবস্থা করেছেন
নির্যাতনের শিকার আফছানা আক্তার জানান, আমার পিতা মারা যাওয়ার পর মা আমাকে ছেড়ে অন্যত্র বিয়ে করে। আমার সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ রাখে না। পিতা মাতা না থাকায় সৎ ভাইয়ের সংসারে অনেক কষ্ট করে থাকতে হত। প্রায় দেড় বছর আগে আমি যখন ৩য় শ্রেণীতে পড়ি তখন আমার এক ভাবি এক হাজার টাকা বেতনে রেখাখাতুনের বাড়িতে ঝিএর কাজে দেয়। কাজে দেয়ার পর থেকে আমি কখনো স্কুলে যেতে পারিনি। ভাবী আমাকে কোন টাকা না দিয়ে প্রতি মাসের বেতনের ১ হাজার টাকা সে নিয়ে যায়। কাজে দেয়ার পর থেকেই বাসার মালিক রেখা আন্টি আমাকে দিয়ে বাসার সব ধরণের কাজ করাতো। আমি কোন কাজে একটু ভূল করলেই মারধর করত ঠিকমত খাবার দিত না। সে আমার সাথে ভাল ব্যবহারও করত না। আফছানার শরীর, ঘাড়ে, পায়ে আঘাতের চিহ্ন এবং ডান হাতে আগুনের ছ্যাকার চিহ্ন রয়েছে। আফছানা বলেন আমি আর কখনো আন্টিদের বাসায় যাব না। আমি এখন যেখানে আছি এখানে থাকতে চাই।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত বাগেরহাট সদর উপজেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রেখা খাতুনের যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে সকল অবিযোগ অস্বীকার করেন।
এ বিষয়ে বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাব্বেরুল হক বলেন, স্থানীয়দের মাঝ থেকে শিশু আফছানার নির্যাতনের বিষয়টি শুনলে তাকে দ্রুত এনে সরকারি শিশু পরিবারে ভর্তি করি। শিশুটি ওখানে পড়াশুনার পাশাপাশি সকল ধরণের সুযোগ সুবিধা পাবে। উপ-সহকারী প্রকৌশলী রেখা খাতুনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ তদন্ত করে যদি দোষি প্রমাণিত হয়, তাহলে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।