বাগেরহাটে জমি বিরোধে প্রতিপক্ষের তান্ডব

16

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটে জায়গা-জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে অগ্নিকান্ড, বাগানের গাছ কর্তন ও গর্ভবতী নারীকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বাগেরহাট সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ইউনিয়নের দেওয়ানবাটি গ্রামের শেখ রফিকুল ইসলামের বাড়িতে। শেখ রফিকুল ইসলাম সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ইউনিয়নের মৃত শেখ মোসলেম উদ্দিনের ছেলে।

ভুক্তভোগী অভিযোগে জানান, শনিবার সকালে স্থানীয় শেখ মোফাজ্জেল ও ইলিয়াস হোসেনের নেতৃত্বে ২০/২৫ জন বহিরাগত লোকজনকে নিয়ে সম্পূর্ণ বে-আইনী ভাবে আমাদের বাড়িতে প্রবেশ করে। এ সময় তাদের হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আমাদের বাগানের প্রায় শতাধিক ফলন্ত কলা গাছ ও ২টি আম গাছ কেটে ফেলে। আমি বাঁধা দিলে লোহার রড দিয়ে আমাকে হামলা করে ও মেরে ফেলার হুমকি দেয়। বিকালে আমি স্ত্রীকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য বাড়ির বাইরে থাকার এই সুযোগে হামলাকারীরা পূনরায় অনাধিকার ভাবে আমার বাড়িতে প্রবেশ করে। এ সময় বাড়িতে আমার অন্তঃসত্ত্বা মেয়ে তানিয়া আক্তার বাড়িতে ছিল। এ সময় হামলাকারীরা কাঠের ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। আমার মেয়ে তানিয়া আক্তার বাঁধা প্রদান করলে হামলাকারীরা আমার মেয়েকে মারধর করে ও বহিরাগত রেজাউল আমার মেয়ের পেটে লাথি মেরে পুকুরে ফেলে দেয়। আমার মেয়ের ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুঁটে এসে উদ্ধার করে ও অজ্ঞান অবস্থায় বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। অগ্নিসংযোগের ঘটনা শুনে বাগেরহাট ফায়ার-সার্ভিসের একটি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু ততক্ষণে ঘরে থাকা সকল মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তিনি আরো জানান, শেখ মোফাজ্জেলের সাথে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের জমি সংক্রান্ত বিরোধ ছিল। কিন্তু বিবাদপূর্ণ জায়গায় সর্বোচ্চ আদালতে রায় পেয়ে সঠিক ভাবে ভোগ দখল করে আসছি আমরা। রায় না পাওয়ার এই ক্ষোভ থেকে শেখ মোফাজ্জেল বাহিরাগত লোকজন এনে হামলা মারধর ও অগ্নিসংযোগ করেছে বলে জানান তিনি।
বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে এম আজিজুল ইসলাম বলেন, অগ্নিকান্ড হামলা ও গাছ কর্তনের অভিযোগে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। হামলাকারীদের দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান।