বাংলাদেশি নাগরিকদের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা দক্ষিণ কোরিয়ার

15

বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করায় দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার বাংলাদেশি নাগরিকদের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

শুক্রবার সিউলে বাংলাদেশ দূতাবাস তাদের ফেসবুক পেজে এই তথ্য জানিয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস তাদের ফেসবুক পেজে জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে দক্ষিণ কোরিয়ায় আসা যাত্রীদের মধ্যে কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্তের হার বৃদ্ধি পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার বাংলাদেশি নাগরিকদের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। আজ শুক্রবার থেকে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

এদিকে, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় কঠোর বিধিনিষেধের আওতায় ১৪ থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত সব অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বাতিল করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। তবে চিকিৎসা, পণ্যবাহী ও বিশেষ ফ্লাইটকে নিষেধাজ্ঞার আওতার বাইরে রাখা হয়েছে।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস মহামারি ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষাপটে গত বছরের ২৩ জুন থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য নতুন ভিসা নিষেধাজ্ঞা এবং বিমান চলাচল স্থগিত করে দক্ষিণ কোরিয়া সরকার। এর ফলে কোরিয়া গমনেচ্ছুক বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী এবং কর্মীর শিক্ষা ও কর্মজীবন হুমকির মুখে পড়ে। পরে পরিস্থিতি বিবেচনায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সিউলে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস এই ভিসা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করে।

কোরিয়া সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে নিষেধাজ্ঞা ওঠার পর মার্চে ১৭ জন ও চলতি মাসে এখন পর্যন্ত ১০ জনের বেশি যাত্রী বাংলাদেশ থেকে করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়ে কোরিয়া যান। দেশটিতে গিয়ে পরীক্ষায় তাদের পজিটিভ হয়। জানা গেছে, নিয়ম অনুযায়ী ওই বাংলাদেশিরা সরকারি তালিকা থেকে কোরিয়ান দূতাবাসের নির্ধারিত ১৩টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভ্রমণের ৭২ ঘণ্টা আগে পিসিআর পরীক্ষা করান। করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়েই ফ্লাইটে উঠেছিলেন তারা। তবুও কোরিয়ায় তাদের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তাদের কারও বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।