দিনে ছাত্র ইউনিয়ন রাতে আ’লীগ!

চট্টগ্রাম ব্যুরোচট্টগ্রাম ব্যুরো
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  12:08 PM, 05 October 2021
আওয়ামী লীগের সম্মেলনের উদ্বোধনী মঞ্চে জাতীয় সংগীত পরিবেশন

শিক্ষার অধিকার আদায়, গণতন্ত্র, সমাজ প্রগতির লড়াই সংগ্রাম এবং সাম্প্রদায়িকতা-সন্ত্রাস-নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলনের ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন।

দেশের প্রাচীনতম বামপন্থী ছাত্র সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটি দু’ভাগে ভাগ হয়ে গেছে সম্প্রতি।

ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির একাংশের সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক দীপক শীলের নেতৃত্বাধীন অংশের অন্যতম ইউনিট কক্সবাজার জেলা সংসদ।

২১ অক্টোবর সম্মেলনের সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা করে আজিজ রিপনকে আহবায়ক ও তনয় দাশকে সদস্য সচিব করে প্রস্তুতি পরিষদ গঠনের পর দিন কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক কক্সবাজারে উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের আওতাধীন ১২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলনের উদ্বোধনী মঞ্চে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করতে দেখা গেলে এই বিষয়কে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

তাছাড়াও বর্তমানে রাজনৈতিক ও স্থানীয় বিভিন্ন ইস্যুতে ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিবাদী অবস্থানের বিপরীতে শুকনাছড়ির ৭০০ একর সংরক্ষিত বনভূমি রক্ষা আন্দোলনে সাবেক ছাত্র ইউনিয়ন নেতাদের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন ( বাপা) কে পরোক্ষ ভাবে নেতৃত্ব তুলে দেওয়া, সরকারী আমলাদের সাথে সহাবস্থান ধরে রেখে বিভিন্ন বিভিন্ন সুবিধা আদায় এবং পৌর আওয়ামী লীগের মঞ্চে জেলা ছাত্র ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাকে সংগীত পরিবেশনে উপস্থিতি ছাত্র ইউনিয়নের রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক দেউলিয়াত্বের পরিচয়।
এমনটাই মন্তব্য করেন রাজনৈতিক সম্প্রীতি অক্ষুন রাখতে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক জেলা ছাত্র লীগ নেতা।

কক্সবাজার জেলা ছাত্র ইউনিয়নের প্রাক্তন সভাপতি সৌরভ দেবের শুকনাছড়ি ইস্যুতে ফেসবুকে পোস্ট করা একটি ভিডিও বার্তায় মাহফুজ রাসেল নামে একজন তনয় দাশ সবুজের গান পরিবেশনের ছবিটি সহ কমেন্ট বক্সে লিখেন,
“দিনে ছাত্র ইউনিয়ন রাতে ওয়ার্ড আ.লীগ৷।আপনারাই সবচাইতে বড় দালাল ভাই। কিছু টাকা ছাড়লে লাইনে চলে আসবেন। ”

এই বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক ( ভারপ্রাপ্ত) উত্তম মারমা ব্যাক্তিগত ব্যস্ততা দেখিয়ে ২০ মিনিট পরে ফোন করার অজুহাত দেখিয়ে এড়িয়ে যান।

সাংগঠনিক সম্পাদকের এমন অসাংগঠনিক ভূমিকার ব্যাপারে আমরা অবগত। এই ব্যাপারে গঠনতন্ত্র অনুসারে সর্ব্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে বলে জোর গলায় দাবি করেন জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সহ সভাপতি ও সম্মেলন প্রস্তুতি পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজ রিপন জানান।

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন কক্সবাজার জেলা সংসদের সভাপতি অন্তিক চক্রবর্তী বলেন, শুকনাছড়ি সহ সকল রাজনৈতিক ও স্থানীয় ইস্যুতে ছাত্র ইউনিয়ন আন্দোলন সংগ্রামের ছিলো আছে এবং থাকবে। রাজনৈতিক ভাবে আওয়ামী লীগ দেউলিয়া বলেই আন্দোলনকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে এমন অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

সাংগঠনিক সম্পাদক তনয় দাশকে তাঁর কৃতকর্মের দায়ে বহিষ্কার করা হবে কিনা জানতে চাইলে জেলা সংসদের সভাপতি ক্ষোভ প্রকাশ করে ফোন কল কেটে দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কক্সবাজার জেলার ছাত্র ইউনিয়নের বিভিন্ন ইউনিট সমূহের বর্তমান ও প্রাক্তন নেতৃবৃন্দ সাংগঠনিক সম্পাদকের অসাংগঠনিক আচরণের বিষয়টি কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক উপস্থিতিতে হওয়ার পরেও দীপক শীলের নীরবতা ও জেলা সংসদের নেতাদের নিস্ক্রিয় ভূমিকার জন্য সংগঠনের আর্দশিক অবস্থানের বির্পযয় থেকে সংগঠন কে রক্ষায় সাংগঠনিক সম্পাদকের বহিঃস্কার করায় এমন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতিতে জরুরি বলে দাবি করেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৯ নভেম্বর ৪০তম জাতীয় সম্মেলনে ফয়েজ উল্লাহকে সভাপতি ও দীপক শীলকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচনের মাধ্যমে ছাত্র ইউনিয়নের ৪১ সদস্যের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন হয়। উক্ত সম্মেলনে একাধিক গঠনতান্ত্রিক ব্যত্যয় এবং
গণতান্ত্রিক চর্চা বিনষ্ট করার অভিযোগে
ঢাকা মহানগর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি জেলা সংসদের প্রতিনিধিরা ঢাকা মহানগর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি জেলা সংসদের প্রতিনিধিরা ফয়েজ – দীপকের নেতৃত্বাধীন অংশটির প্রতি অনাস্থা জানান।

চট্টগ্রাম বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :