ডিম পেড়েছে বাগেরহাটে হযরত খানজাহানের দীঘির কুমির ‘কালাপাহাড়’ 

23

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটে হযরত খানজাহানের দীঘির কুমির ‘কালাপাহাড়’ অর্ধশত ডিম পেড়েছে। দেশের দ্বিতীয় আধ্যাত্বিক রাজধানী হযরত খানজাহানের (রহ:) মাজার শরীফের দীঘিতে মিঠাপানির বিলুপ্তপ্রজাতির ‘কালাপাহাড়’ নামের মাদি কুমিরটি শুক্রবার ভোর রাতে অর্ধশত ডিম দেয়। খানজাহানের বিশাল দীঘির পূর্বপাড়ে মাটি খুঁড়ে ডিম পাড়ে।
মাজার শরীফে আসা হযরত খানজাহানের ভক্ত-আশেকান ও পর্যটকরা কুমিরের ডিম পাড়ার খবর পেয়ে দেখতে আসছেন দীঘির পূর্বপাড়ে বিনা আক্তরের বাড়িতে। ডিম পেড়ে কুমির কালাপাহাড় এখন সেই ডিম ফুঁটাতে ‘তা’ দিচ্ছে। কুমিরের ওইসব ডিম থেকে ৯০ দিনের মধ্যে বাচ্চা ফুঁটবে বলে আশা করছেন মাজার শরীফের খাদেমসহ প্রানি বিশেষজ্ঞরা। তবে, অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণ ও বয়স্ক হবার কারণে গত ২০ বছরে খানজাহানের শরীফের দীঘির কুমিরের ডিম থেকে কোন বাচ্চা ফোটেনি। এতে করে দেশের একমাত্র খানজাহানের শরীফের দীঘিতে শত-শত বছর ধরে বসবাস করা মিঠাপানির কুমির বিলুপ্তির শংঙ্কা বাড়ছে প্রানি বিশেষজ্ঞদের। ইতিপূর্বে খানজাহানের দীঘিতে বংশ পরাম্পর বসবাস করে আসা ৫০০ এবং ৬০০ বছর বয়স্ক পুরুষ এবং মহিলা প্রজাতির ২টি কুমির মারা গেছে। বর্তমানে হযরত খানজাহানের দীঘিতে কালাপাহাড় ও ধলাপাহার নামে পুরুষ এবং মহিলা প্রজাতির মাত্র ২টি কুমির রয়েছে। এই দুটি কুমির মারা গেলেই বাংলাদেশ থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাবে বিলুপ্তপ্রজাতির মিঠাপানি প্রজাতির কুমির।