চীনা কূটনীতিকের আলোচিত মন্তব্য নজর কেড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের

35

যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও জাপানের সমন্বয়ে গঠিত জোট কোয়াডে যোগ দিলে ঢাকা-বেইজিং দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষতি হবে বলে মন্তব্য করেছিলেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং। গত সোমবার (১০ মে) ডিপ্লোমেটিক করেসপন্ডেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ওই মন্তব্য করেন।

চীনা কূটনীতিকের ওই আলোচিত মন্তব্য নজর কেড়েছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের। বুধবার (১২ মে) ওয়াশিংটনে এক সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মুখপাত্র নেড প্রাইস বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক অত্যন্ত ভালো জানিয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশে চীনা রাষ্ট্রদূতের মন্তব্য আমাদের নজরে এসেছে। আমরা যেটি বলতে চাই আমরা বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে শ্রদ্ধা করি। দেশটি নিজেরাই নিজেদের পররাষ্ট্র নীতি তৈরি করার অধিকার রাখে এই বিষয়টিও আমরা শ্রদ্ধা করি।’

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, জলবায়ু পরিবর্তন থেকে মানবিক ক্ষেত্রে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের অংশীদারিত্ব আছে বলে তিনি জানান।

কোয়াড প্রসঙ্গে নেড প্রাইস বলেন, এ বিষয়ে আমরা আগেও বলেছি যে এটি একটি অনানুষ্ঠানিক কিন্তু প্রয়োজনীয় বহুপক্ষীয় মেকানিজম, যা এই মুহূর্তে সমমনা গণতান্ত্রিক দেশগুলো যেমন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও জাপানকে নিয়ে গঠিত। এটির উদ্দেশ্য হচ্ছে স্বাধীন ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক প্রতিষ্ঠাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া।

উল্লেখ্য গত সোমবার এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে চীনের রাষ্ট্রদূত বলেন কোয়াডে যোগদান করলে বা সম্পর্ক রাখলে বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক ‘উল্লেখযোগ্য ক্ষতি’ হবে। এর প্রেক্ষিতে বুধবার পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন ও মহাপরিচালক খন্দকার তালহা চীনের রাষ্ট্রদূতের কাছে তার বক্তব্যের ব্যাখ্যা চান।