চট্টগ্রাম সিটিসহ শূন্য আসনগুলোর উপনির্বাচনের দিনক্ষণ ঠিক করতে যাচ্ছে ইসি

157

Last Updated on

মিন্টু দত্ত,চট্টগ্রাম ব্যুরো:চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিনক্ষণ নির্ধারণ এবং দেশের চারটি সংসদীয় আসনের শূন্য আসনের উপনির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এজন্য সোমবার (১ জুন) বৈঠকে বসবেন নির্বাচন কমিশনাররা। এদিন বিকাল চারটায় কমিশনের ৬৩তম এই সভা হওয়ার কথা রযেছে।

দেশের ৪টি সংসদীয় আসন শূন্য থাকায় উপনির্বাচন অনুষ্ঠানে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। বিষয়টি মাথায় রেখে সরকারি অফিস আদালত খুলে দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জরুরি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে করোনাকালের মধ্যে এ কমিশন সভা হতে যাচ্ছে।

ইসি উপ-সচিব মো. শাহ আলম স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

নোটিশে জানানো হয়েছে, এ বৈঠকে ৬টি আলোচ্যসূচি রয়েছে। এগুলো হলো প্রতিনিধিত্ব আইন, ২০১০-এর খসড়া বিল অনুমোদন, রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন আইন প্রণয়ন, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রণীত আইন বাংলা প্রণয়ন, জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর স্থগিত নির্বাচনের ওপর আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণ আইন ২০১০ এবং বিবিধ।

সংসদ সদস্যদের মৃত্যুজনিত কারণে বগুড়া-১, যশোর-৬, পাবনা-৪ ও ঢাকা-৫ সংসদীয় আসন বর্তমানে শূন্য রয়েছে। এরমধ্যে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনের উপনির্বাচনের তফসিল হলেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ কারণে শেষ মুহূর্তে তা স্থগিত হয়। ওই কারণে স্থগিত হয় চট্টগ্রাম সিটির ভোট। ২৯ মার্চ এই তিনটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল।

এরইমধ্যে পাবনা-৪ ও ঢাকা-৫ আসনের সদস্যদের মৃত্যু হওয়ায় এ দুটি আসনও শূন্য হয়েছে।

সংসদীয় আসন শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ সংসদীয় আসনে সেটা মানা সম্ভব হয়নি। তবে সংবিধানে এও বলা আছে, ‘দৈব-দুর্বিপাকের কারণে’ উপনির্বাচন করার জন্য আরও ৯০ দিন পাওয়া যাবে। নির্বাচন কমিশন এখন সেই সুযোগ নিচ্ছে। এরপরও করোনার কারণে নির্বাচন করতে না পারলে রাষ্ট্রপতির কাছে যাবে ইসি।

অন্যদিকে জুলাইয়ের মধ্যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আর ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনের জন্য হাতে কিছু সময় থাকলেও পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচনের সময় শেষের দিকে।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ জানুয়ারি সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে বগুড়া-১ এবং ২১ জানুয়ারি সংসদ সদস্য ও সাবেক জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেকের মৃত্যুতে যশোর-৬ আসন শূন্য হয়। পাবনা-৪ আসনের (আটঘরিয়া-ঈশ্বরদী) সংসদ সদস্য সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ২ এপ্রিল। ঢাকা-৫ আসনের (ডেমরা-দনিয়া-মাতুয়াইল) সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান মোল্লা হাসপাতালে মারা যান ৬ মে।