গ্রামীণ ব্যাংকের ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে কিছু কথা

62

মিথ্যাকে যিনি চরম সত্য বলে বোঝাতে পারেন তিনি একজন সফল উদ্যোক্তা জ্ঞানী ব্যক্তি সুপ্রতিষ্ঠিত মানুষ ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস। তাঁর উদ্ভাবিত ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প গ্রামীণ ব্যাংকের মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দান করেন। উদ্দেশ্য মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটানো। এই বিশ্বায়নের যুগে মানুষ ভাগ্যের পরিবর্তনের জন্য পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে ছুঁটে বেড়াচ্ছেন। প্রতিনিয়ত শিক্ষা-স্বাস্থ্য অর্থনৈতিক উন্নতি ঘটছে, শুধু আমাদের দেশে নয়, এটা সারাবিশ্বের হালচিত্র। গ্রামীণ ব্যাংকের সামান্য টাকায় ভাগ্য ফেরানোর জন্য কেউ ঘরে বসে থাকে না।

আমরা যখন প্রথম কিস্তি কালেকশনের করতে যেতাম মেনরোড বাদে সব কাঁচা রাস্তা বৃষ্টি হলে সাইকেল ধরে নিতে হতো। সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় ঘাটের উন্নয়ন হয়েছে শিক্ষা স্বাস্থ্য বাসস্থান সবকিছুর উন্নয়ন ঘটেছে। ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস এইসব রাষ্ট্রীয় উন্নয়নকে নিজের এবং গ্রামীণ ব্যাংকের উন্নয়ন দাবি করে এর বিদেশের অনেক দেশ প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা কে বোঝাতে সক্ষম হয়েছে মাইক্রোক্রেডিট প্রোগ্রাম এর বাংলাদেশ আর্থসামাজিক উন্নয়নের চরম শিখরে ইউরোপ-আমেরিকার সাদা চামড়ার মানুষ গুলো বিশ্বাস করেছে ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস তৃতীয় বিশ্বের জন্য সত্য সত্য আশীর্বাদ। ডঃ ইউনূসের মিথ্যাকে সত্য বলে বিশ্বাস করে অগণিত পুরস্কার দিয়েছে বিদেশীরা বাকি ছিল নোবেল ২০০৬ সালে সেটাও দিয়ে দিলো। অগণিত বঞ্চিত সদস্যদের বুকের উপর পা রেখে 12000 কর্মচারীকে বেকার অভিশপ্ত জীবনে ফেলে দিয়ে নোবেল পুরস্কার ঘরে আনলেন ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস। এদেশের মানুষের উচিত এর প্রতিবাদ করা এদেশের সরকারের উচিত গ্রামীণ ব্যাংক ও ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস এর সমস্ত কর্মকাণ্ড শুরু থেকে অদ্যাবধি নিরীক্ষণ করে সব মিথ্যাকে উদঘাটন করা পরে আরও বড় কোন মিথ্যাকে সত্য বলে প্রকাশ করবে যা দেশের দেশের মানুষের জন্য চরম ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। দুষ্ট গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল ভালো গ্রামীণ ব্যাংকের অস্তিত্ব বিলীন হলে দেশের মানুষ কঠিন অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে।

মিনহাজুর রহমান