গুপ্তধন উদ্ধারের নামে তরুণীকে রাতভর ধর্ষণ

69

আপেল মাহমুদ/ইঞ্জিনিয়ার মনিরুজ্জামান মুন্না, দিনাজপুর: গুপ্তধন উদ্ধারের নামে ফাঁদ পেতে এক তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুরের হিলি এলাকায়।

আজ মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) দুপুরে হিলির বড় ডাঙাপাড়া গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন-দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার বালিয়াতপুর গ্রামের মমতাজ আলীর ছেলে আব্দুল মোতালেব গুরু (৪০) ও একই গ্রামের আয়জার রহমানের ছেলে ইসমাইল হোসেন (৩২)।

হাকিমপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ গণমাধ্যমকে জানান, গত ৪ মার্চ গুপ্তধন উদ্ধারের নামে ঘোড়াঘাট থেকে মোতালেব ও ইসমাইল হিলির বড় ডাঙাপাড়া গ্রামের একটি বাড়িতে অবস্থান করেন। গুপ্তধন উদ্ধার কাজে একজন তরুণীর প্রয়োজন বলে জানায়। তাদের দাবি মেনে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে এলাকার এক তরুণীকে ঠিক করেন। পরে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে ওই তরুণীকে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। সোমবার ভুক্তভোগী তরুণী অভিযুক্তদের তার নিজের বাসায় এনে কৌশলে আটকে ফেলেন।

ওসি ফেরদৌস আরও জানান, এ ঘটনায় অভিযুক্ত মোতালেব ও ইসমাইলের পরিবারের সদস্যরা তাদের উদ্ধারের জন্য ৯৯৯-এ কল দেন। তারা জানতেন না কেন ওই দুজনকে আটকে রাখা হয়েছে। কল পেয়ে হিলির পার্শ্ববর্তী বিরামপুর থানা পুলিশ দুপুরে বড় ডাঙ্গাপাড়া এসে তাদের উদ্ধার করে নিয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে ভুক্তভোগী নারী ও অভিযুক্তদের বক্তব্য শুনে তাদের আটক করে হাকিমপুর থানায় সোপর্দ করা হয়। ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী হাকিমপুর থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

আটককৃতরা গুপ্তধন উদ্ধারের নামে দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন এলাকায় তরুণীদের ধর্ষণ করে বেড়াচ্ছিলেন-যোগ করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।