গাজীপুরে যৌন উত্তেজক ওষুধ তৈরির কারখানা আবিস্কার

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:47 PM, 06 March 2019

সমর ভৌমিক/আজাহার মাহমুদ, ঢাকা: ঢাকার গাজীপুরে কোটি টাকার ভেজাল ওষুধসহ  কারখানা মালিককে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। গাজীপুর মহানগরীর ভুরুলিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে এসব অবৈধ ওষুধ ও ওষুধ তৈরির মালামাল উদ্ধার করা হয়।

পড়ুন>>>পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়েছে হিরো আলম

মঙ্গলবার অভিযান চালিয়ে এসব অবৈধ ওষুধ ও ওষুধ তৈরির মালামাল উদ্ধার করা হয়। বুধবার সকালে গাজীপুর মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ড. রুহুল আমিন সরকার।

তিনি জানান, সরকারি অনুমোদন ছাড়াই বিভিন্ন মানুষের ও পশুর চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন ধরণের ওষুধ তৈরি করছিল চক্রটি। তারা বিভিন্ন প্রকার কেমিক্যাল ও দাহ্য পদার্থের সঙ্গে কৃত্রিম রং মিশিয়ে মানুষের রক্ত শুদ্ধিকরণ বটিকা, চর্মরোগের মলম, যৌনশক্তি বৃদ্ধিকরণ বটিকা, চুলপড়া বন্ধের তৈল, হাঁস-মুরগি ও কবুতরের কলেরা, বসন্ত, রাণীক্ষেত এবং ডাক প্লেগের ওষুধ তৈরি করে তা সারাদেশে বিতরণ করে আসছিল।

বিশেষ সূত্রের ভিত্তিতে মঙ্গলবার বিকেলে ভুরুলিয়ায় তাদের কারখানায় অভিযান চালিয়ে প্রায় কোটি টাকা মূল্যের বিভিন্ন কেমিক্যাল ও ভেজাল মালামাল উদ্ধার করা হয়। এ সময় কারখানার মালিক রংপুরের মিঠাপুকুর থানার রাণীপুকুর গ্রামের মৃত আকমল হোসেনের ছেলে মো. রাব্বানী (৩৮) ও পশ্চিম ভুরুলিয়া এলাকার ময়লার টেকের মজিবর রহমানের ছেলে আব্দুস সালামকে (৪২) আটক করা হয়।

এ সময় গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (ক্রাইম) শরিফুর রহমান জানান, অবৈধ গ্যাস সংযোগের মাধ্যমে বিভিন্ন কেমিক্যাল উচ্চতাপে বিপজ্জনকভাবে গলানো হয়। পরে আটা, রং, ভিনেগার, কৃত্রিম ফ্লেভার মিশিয়ে প্রস্তুত করা হয় ভেজাল ওষুধ। যা মানুষ ও পশুপাখির চিকিৎসার জন্য সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়া হত। প্রেস ব্রিফিংকালে উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) আরিফুল হক উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :