আফগানে তালেবানের নতুন সরকার

ইচক দুয়েন্দেইচক দুয়েন্দে
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  07:23 PM, 04 September 2021

২০ বছরের যুদ্ধের বিশৃঙ্খল পরিসমাপ্তির পর নতুন সরকার গঠন করেছে তালেবান। টালমাটাল অর্থনৈতিক পরিস্থতির মধ্যেই চলেছে সরকার গঠনের এই প্রক্রিয়া। আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় পর দেশেএ সরকার ঘোষণা দিয়েছে তালেবান।

নতুন সরকার ঘোষণার জন্য  রাজধানী কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন হচ্ছে। স্যোশাল মিডিয়ায় জানিয়েছেন তালেবান নেতা আহমাদুল্লাহ মুত্তাকি।

 তালেবান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বার্তা সংস্থাকে বলেছেন, তিনি সঠিক দিনক্ষণ বলতে পারছেন না। তবে সরকার ঘোষণা কয়েকদিনের ব্যাপার মাত্র। তালেবানের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা গতমাসে জানিয়েছিলেন, নতুন শাসন পরিচালনাকারী কাউন্সিলের ওপর তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদারচূড়ান্ত ক্ষমতা থাকতে পারে

আখুন্দজাদার তিন ডেপুটি বা উপনেতা আছেন। তাদের একজন, মোল্লা ইয়াকুব। তিনি তালেবানের প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের ছেলে। আরেকজন, সিরাজুদ্দিন হাক্কানি। তিনি হাক্কানি নেটওয়ার্কের নেতৃত্বে আছেন আর তৃতীয়জন হচ্ছেন, তালেবানের অন্যতম সহপ্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আবদুল গনি বারদার।

সরকারে তিনজনই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় থাকবেন বলে মনে করা হচ্ছে। সংঘাতবিধ্বস্ত এবং খরাপীড়িত আফগানিস্তানেরনতুর সরকারের বৈধতার বিষয়টি হবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  অর্থনীতির জন্য আন্তর্জাতিক দাতাদের পাশাপাশি বিনিয়োগকারীদের চোখে এই বৈধতা অত্যন্ত জরুরি।

এদিকে, যেসব বিদেশি এবং আফগান দেশ ছেড়ে যেতে পারেনি তাদের জন্য একটি সেফ প্যাসেজের ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতি তালেবান দিয়েছে। কিন্তু কাবুল এয়ারপোর্ট বন্ধ থাকায় অনেকেই সীমান্ত পেরিয়ে পাশের দেশগুলোতে ঢোকার চেষ্টায়    আছেন।

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, তালেবানের সঙ্গে কাতারের আলোচনা চলছে এবং কাবুল বিমানবন্দর আবার সচল করতে কারিগরি সহায়তা দেওয়া নিয়ে তুরস্কের সঙ্গেও কাজ চলছে। বিমানবন্দর চালু হলে মানবিক সহায়তা পাওয়া এবং মানুষকে দেশ ছেড়ে যেতে দেওয়াও সহজ হবে।

দোহায় কাতারের মন্ত্রীর সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক তৃতীয় একটি দেশের মধ্য দিয়ে সেফ প্যাসেজের ব্যবস্থা করার জন্য আঞ্চলিক দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছেন।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র কার্যালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, কাবুল বিমানবন্দর সচল করা এবং বিদেশি নাগরিকদের জন্য সেফ প্যাসেজ এবং সীমান্ত এলাকায় আফগানদের বিষয়টি আলোচনার শীর্ষে আছে।

সূত্র: এনটিভি

আন্তর্জাতিক

আপনার মতামত লিখুন :