অভয়নগরে ১৩ কেজি গাজাসহ ছাত্রদল কর্মী আটক

15

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি:যশোরের অভয়নগরে ১৩ কেজি গাজাসহ ছাত্রদল কর্মী আল মামুন বিশ্বাসকে (২৫) আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তার সহযোগী বাদশা নামে অপর এক মাদক কারবারি পালিয়ে গেছে। রবিবার (২১ মার্চ) ভোররাতে উপজেলার চলিশিয়া ইউনিয়নের বাগদহ গ্রামের পশ্চিমপাড়া থেকে গাজাসহ মামুনকে আটক করে অভয়নগর থানা পুলিশ। আটক মামুন বাগদহ গ্রামের চিহ্নিত মাদক কারবারি ও একাধিক মামলার আসামি আতিয়ার বিশ্বাস ওরফে গাজা আতির ছেলে। সে চলিশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ছিল। উদ্ধারকৃত গাজার মূল্য প্রায় চার লাখ টাকা।

অভয়নগর থানা সূত্র জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার আনুমানিক ভোর ৪ টার সময় বাগদহ পশ্চিমপাড়ায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের এক পর্যায়ে আতিয়ার বিশ্বাসের বাড়ি সংলগ্ন মশিয়ার রহমানের বাড়ির সামনে দুই বান্ডিল পলেথিনে মোড়ানো গাঁজাসহ মামুনকে আটক করা হয়। অপর দুই বান্ডিল গাজা ফেলে পালিয়ে যায় বাদশা। উদ্ধারকৃত চার বান্ডিল গাঁজাসহ মামুনকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।
চলিশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রজিবুল ইসলাম মোল্যা জানান, আল মামুন বিশ্বাস চলিশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক কমিটির সদস্য ছিল। বর্তমান কমিটি না থাকায় সে বিএনপির একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে কাজ করে।
বাগদহ পশ্চিমপাড়াবাসীর অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে আতিয়ার বিশ্বাস, তাঁর ছেলে ছাত্রদল নেতা মামুন বিশ্বাস, একই গ্রামের হামিদ বিশ্বাস, উজ্জ্বল হোসেন, বাদশা মিয়া ও আব্দুর রাজ্জাক বিশ্বাস উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গাজা ও ইয়াবা পাইকারি সরবরাহ করে থাকেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে বার বার আটক হলেও তাঁরা জামিনে বেরিয়ে এসে পূনরায় শুরু করে মাদক ব্যবসা। এসব মাদক কারবারিদের দৌরাত্যে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিৎ।
এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান জানান, ১৩ কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজাসহ মামুন নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে। পলাতক মাদক কারবারি বাদশাকে আটকের জন্য পুলিশি অভিযান চলছে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলমান আছে।