অক্সিজেন সরবরাহ অব্যাহত রাখায় প্রশংসিত হচ্ছে পাইকগাছা প্রশাসন

এবিসি বাংলা ডেস্কএবিসি বাংলা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:40 PM, 07 July 2021

পাইকগাছা প্রতিনিধি:পাইকগাছার চিকিৎসাধীন মুমূর্ষ কোভিড রোগীদের জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহ করে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন। পহেলা মে থেকে গত দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থা স্বাভাবিক রেখেছে। সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবাল মন্টু ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকীর নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী।
সম্প্রতি এলাকায় করোনার প্রাদূর্ভাব ও সংক্রমণের হার চরম আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে। সংক্রমণের হার এতটাই বেড়েছে যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১৫ বেডের করোনা ইউনিটে রোগীর সংকলন হচ্ছে না। অথচ যখন সংক্রমণের হার কম ছিল এবং এমন কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হওয়া লাগতে পারে বিষয়টি মাথায় রেখে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের উদ্যোগে এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকীর প্রচেষ্টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১৫ বেডের অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যাংক ও হাইফ্লো নেজাল ক্যানোলা স্থাপন করা হয়। এটি স্থাপন করেই থেমে থাকেনি প্রশাসন। এই ইউনিটে চিকিৎসাধীন কোভিড রোগীদের প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহ করে আসছে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন। পহেলা মে থেকে এর কার্যক্রম শুরু হয় এবং পরবর্তীতে আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করা হয়। মে’র প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু করে দুই মাসেরও অধিক সময় ১৫ বেডের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন রোগীদের এ পর্যন্ত যত অক্সিজেন প্রয়োজন হয়েছে তার সবটাই উপজেলা প্রশাসন থেকে সরবরাহ করা হয়েছে এবং সরবরাহ অব্যাহত রাখা হয়েছে বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী জানিয়েছেন।
উপজেলা প্রশাসনের এ কর্মকর্তা জানান, অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যাংক ও হাইফ্লো নেজাল ক্যানোলা যখন স্থাপন করা হয় তখন সংক্রমণের হার খুব বেশি ছিল না। এখন যে কঠিন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তাতে আমরা আগে থেকেই যদি কোভিড রোগীদের চিকিৎসার জন্য এমন ব্যবস্থা না করতাম তাহলে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো। মহান আল্লাহর কাছে হাজারো শুকরিয়া আমরা অনন্ত ১৫ বেডের একটা সুন্দর ব্যবস্থা করতে পেরেছি। বর্তমানে সংক্রমনের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় ১৫ বেডে রোগীর সংকলন হচ্ছে না। চিকিৎসাধীন রোগী বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের চিকিৎসার জন্য অক্সিজেনেরও চাহিদা বেড়েছে। তবে আমরা উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন থেকে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহ স্বাভাবিক রাখায় এখনো পর্যন্ত অক্সিজেনের সংকট সৃষ্টি হয়নি। প্রতিবার ২৮ হাজার টাকার অক্সিজেন লাগছে এবং ৪ থেকে ৫ দিন পরপর অক্সিজেন সরবরাহ করতে হচ্ছে। উপজেলা পর্যায়ে কোভিড রোগীদের জন্য চিকিৎসা সু-ব্যবস্থা এবং প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহ স্বাভাবিক রাখায় উপজেলা পরিষদ এবং উপজেলা প্রশাসনের নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী। বিশেষ করে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন ও ইউএনও এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী মহামারী করোনা কালীন সময়ে যে আর্তমানবতার সেবায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা মানুষের কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

খুলনা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :