সাতক্ষীরায় চা দোকানী পিতা-পুত্রের কারাদন্ড

158

খরিদ্দারের শরীরে গরম পানি ঢেলে হত্যা চেষ্টার মামলা

সাতক্ষীরা সাংবাদদাতা ॥ খরিদ্দারকে পরিকল্পিতভাবে গায়ে গরম পানি ঢেলে হত্যার চেষ্টা মামলায় চা দোকানী বাবা ও ছেলেকে ৫ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন বিজ্ঞ আদালত। এসময় এক ছেলেকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়। সাজাপ্রাপ্ত প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই মাসের বিনাশ্রম করাদন্ড দেয়া হয়।
রোববার দুপুরে সাতক্ষীরা চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মোস্তফা পাভেল রায়হান জনাকীর্ণ আদালতে এরায় ঘোষণা করেন।
চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের বেঞ্চ সহকারি আশরাফুল ইসলাম জানান, ২০১৩ সালের পহেলা জানুয়ারী সাতক্ষীরা শহরের পলাশপোল জজকোর্ট এলাকায় অবস্থিত আসামী সৈয়দ আলীর চায়ের দোকানে বসে থাকা অবস্থায় পূর্ব শত্রুতার জেরধরে পলাশপোল গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম পলাশের গায়ে চা তৈরির জন্য প্রস্তুত কেটলির গরম পানি আসামী সৈয়দ আলী তার ছেলে খায়রুল ইসলাম ও আনারুল ইসলাম বাদী পলাশের গায়ে ঢেলে দেয়। এতে সে দগ্ধ হলে তাৎক্ষণিক তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসাপাতালে নেয়া হয়। ওইদিন রাতে পরিবারের পক্ষ থেকে চা দোকানী সৈয়দ আলী, ছেলে খায়রুল ইসলাম ও আনারুল ইসলামকে আসামী করে দন্ড বিধির ৩৪১/৩২৬/৩২৩/৩০৭/১১৪ ধারায় সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা দীর্ঘ তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন। মামলাটি আদালতে বিচারের জন্য উপস্থাপন হলে ৯জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য প্রদান শেষে নথিপত্র পর্যালোচনা করে বিজ্ঞ বিচারক মোস্তফা পাভেল রায়হান বাবা সৈয়দ আলী ও ছেলে খায়রুল ইসলামের বিরুদ্ধে উপরোক্ষ রায় প্রদান করেন। অপর আসামী ছেলে আনারুলকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়। রায়ের সময় আসামীরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।