মাগুরায় মুক্তিযোদ্ধাসহ অনন্ত ২০ জনের বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুর লুটপাট

229

শালিখা সাংবাদাতা ॥ মাগুরা সদর উপজেলার গোপালগ্রাম ইউনিয়নে সংকোজখালী ও গোয়ালবাতান গ্রামে দুই মুক্তিযোদ্ধার বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট অনন্ত ২০টি বাড়ি ভাংচুর করেছে সন্ত্রাসীরা। এ সময় সন্ত্রাসীদের হামলায় ৮/১০ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে আশংকা অবস্থায় ২ জনকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হলেন সংকজ খালী গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু বক্কর শেখের পুত্র আমিনুর রহমান (৩২), গোয়ালবাতান গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক মোল্যার পুত্র মশিউল আজম বাচ্চু (৪০)। এ ঘটনায় এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জানা যায়, মঙ্গলবার ভোর রাতে পূর্ব শত্রুতা ও সামাজিক বিরোধের জেরধরে সংকোজখালী গ্রামের সন্ত্রাসী পান্না, আলমগীর ও টিটুলের নেতৃত্বে কতিপয় সন্ত্রাসী অতর্কিত ভাবে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাসহ তার লোকজনের বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় নায়েব হোসেন, শাহজাহান, কাশেম মোল্যা, হাফিজার রহমান, আজগার হোসেন, ইবাদুল, বাচ্চু মিয়াসহ প্রায় ২০ জনের বাড়িতেও হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এসময় তারা কুপিয়ে বাড়ির মালামাল তছনছ করে ও চলে যাওয়ার আগে লুটপাঠ করে। কাশেমসহ অনেকের বাড়িতে ভাংচুৃর করে চলে যাওয়ার সময় মোটরসাইকেল, টেলিভিশন, মোবাইল সেট, নগদ টাকাসহ অনেক কিছু নিয়ে যায়। এছাড়া একই গ্রুপের জামায়াত নেতা আকছার, কাউছার হাসান বিল্লালসহ কয়েকজনের গোয়ালবাতান গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুর রাজ্জাকের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এ সময় তার পুত্র বাচ্চুকে আহত করে মোবাইল, বাইসাইকেলসহ অন্যন্য মালামাল লুট করে। ইউপি চেয়ারম্যান রাজিব হোসেন ও ইউপি মেস্বার আব্দুর রহমান বলেন, পান্নাসহ কতিপয় সন্ত্রাসী দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করে বিভিন্ন প্রকার অপকর্ম করে আসছে। শত্রুজিৎপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জাফর আহম্মেদ জানান, এ ঘটনায় ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের আটক করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিলে।