বেনাপোল কাস্টমসের নিরাপত্তায় মেটাল ডিটেক্টর ও আন্ডার ভেইক্যালের উদ্বোধন

401

বেনাপোল সংবাদদাতা ॥ ও আন্ডার ভেইক্যালের উদ্বোধন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার দুুপরে পরামর্শক কমিটির এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
কাস্টম কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, বন্দর পরিচালক আমিনুল ইসলাম, অতিরিক্ত কাস্টম কমিশনার জাকির হোসেন, বাংলাদেশ ভারত চেম্বার অব কমার্সের উপ কমিটির চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান, সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সহসভাপতি আলহাজ্ব নুরুজাসমান, সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, যুগ্ম সম্পাদক মহাসিন মিলন কাস্টম বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দিন, শিমুল প্রমুখ। সভায় বন্দর কাস্টম সিএন্ডএফ বিজিবি পুলিশসহ বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
কমিশনার বলেন, আমদানি রফতানি বাণিজ্যে সহজীকরণে ও সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধিতে বেনাপাস নামে ডকুমেন্টরী সফট ওয়্যার ও মোবাইল স্কানারসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। ফলে বাণিজ্যে ফিরবে গতি। বাড়বে রাজস্ব। এসময় একটি ডকোমেন্টরী ফিল্ম দেখানো হয়। অটোমেশনের আওতায় আসলে ৩টি স্থানের এন্ট্রি বাদে করা যাবে বিলঅব এন্টিসহ সব কাজ। সীমান্তে একটি স্থানেই কাস্টম বন্দর ও বিজিবি চেকিং করে প্রবেশ করবে মালামাল ফলে বাচবে সময়। কমবে হয়রানি। দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থলবন্দর বেনাপোল নয় আদর্শ বেনাপোল হিসাবে গড়ে তুলতে কাজ করা হচ্ছে। শৃঙ্খলা পরিবেশে বানিজ্য সম্প্রসারণ, যানজট নিরসন, ডেক্স সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। বর্তমানে যেসব পণ্য আকাশ পথে যেত ইউরোপে এখন থেকে যাবে বেনাপোল দিয়ে। বছরে একলাখ ৩ হাজার মে:টন মালামাল বন্দরে প্রবেশ করেছে বলে জানান বন্দর পরিচালক আমিনুল ইসলাম। তিনি আরো বলেন ২৪/৭ মানে ২৪ ঘন্টা যেখানে বন্দর রয়েছে চালু সেখানে রিকুইজেশনের কোন সুযোগ নেই। ব্যবসায়ীদের সব সুযোগ সুবিধা দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।
নগরী আধুনিকায়ন ডিজিটাল বাংলাদেশ ও বেনাপোল গঠনে বেনাপোলকে অটোমেশিনের আওতায় আনা হবে। বিল অব এন্টি দাখিলের জন্য আইবেল নামে সফট ওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। যা হবে বিশ্বের রোল মডেল। প্রায় সাড়ে সাত শত কোটি টাকা ব্যয়ে বেনাপোলে হেলিপেডসহ বিশতলা আধুনিক ভবন নির্মাণ করা হবে। যেখানে থাকবে আধুনিক বেনাপোলের একাধিক সুযোগ সুবিধা। বেনাপোলকে একটি পরিচ্ছন্ন নগরীতে পরিণত করতে সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে পরিচ্ছনতা অভিযান পরিচালনার ঘোষণা দেন তিনি। এলাকার সব স্কুল কলেজে কাস্টম বিষয়ে সিলেবাস পড়ানো ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে সমাবেশ ও তাদেরকে পুরস্কারের ঘোষণাও দেওয়া হয়েছে। বেনাপোল কাষ্টমসে আধুনিক মানের রেস্টুরেন্ট কাস্টম ক্লাবে সর্বসাধারণের অংগ্রহনের সুযোগ থাকবে বলে জানান কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী। বেনাপোলকে জাগাবো, জানাবো বলবো বেশী ভালবাসি তোমায় এর আলোকে সাজাতে চাই বেনাপোল কাস্টম ও বন্দরকে। বাড়াতে চাই রাজস্ব আয় সেবা ইকুপমেন্ট। ডিজিটাল বাংলাগঠনে কাজ করার জন্য সবার অংশ গ্রহণ ও সহযোগিতা চাওযা হয়।