চৌগাছায় অন্ত:সত্ত্বা বধুর আত্নহত্যা নিয়ে প্রশ্ন

264

* মৃতের স্বামীকে মারপিটের পর পুলিশে সোপর্দ তদন্ত

চৌগাছা সংবাদদাতা ॥ যশোরের চৌগাছায় টুম্পা (২২) নামে ৯ মাসের অন্ত:সত্ত্বা এক গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার হয়েছে। তার স্বামী আত্নহত্যার প্রচার দিলেও স্বজনরা বলছেন হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখে আতœহত্যার প্রচার দেয়া হয়েছে। উত্তেজিতরা মৃতের স্বামী টুটুলকে মারপিট করে পুলিশে দিয়েছে। এদিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ফুলসারা গ্রামে।
পুলিশ ও এলাকাবাসি সূত্র জানিয়েছে, ২০১৪ সালে ফুলসারা গ্রামের জহির উদ্দীনের মেয়ে টুম্পার সাথে মশিউরনগর গ্রামের দুদুর ছেলে টুটুল রহমানের প্রেমজ সম্পর্কের সূত্র ধরে বিয়ে হয়। শুক্রবার সন্ধায় টুটুল তার শ্বশুরবাড়িতে যায়। শনিবার দিবাগত রাত ৩ টার সময় সে চিৎকার করে ওঠেন, টুম্পা গলায় ফাঁস দিয়েছে। বাড়ির লোকজন ঘুম থেকে উঠে ভাঙ্গাচোরা রান্না ঘরের বাঁশের আড়ায় গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় ঝুলন্ত টুম্পাকে নামিয়ে বাঁচানোর চেষ্টা করে। ততোক্ষণে সে মারা যায়।
মেয়ের চাচা জাহিদুল ইসলাম জানান, মেয়ে ও জামাই তাদের ঘরেই ছিল। রাত আনুমানিক ৩টার দিকে ঘরের পাশে রান্না ঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় বাড়ির লোকজন টুম্পাকে দেখে। তিনি দাবি করেন, আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেবার জন্য টুটুল হত্যা করে লাশটি ঝুলিয়ে রাখে। সে ৯ মাসের অন্ত:স্বত্ত্বা ছিল। এ বিষয়ে থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আকিকুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে যশোর মর্গে পাঠিয়েছি। নিহত টুম্পার স্বামী টুটুলকে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন মারপিট করে বেঁধে রাখে। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহতা তা ময়না তদন্তের পরে বোঝা যাবে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি।