কালিগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা মামলায় আরও দু’জন গ্রেফতার

137

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) সাংবাদদাতা ॥ কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউপি চেয়ারম্যান কেএম মোশাররফ হোসেন হত্যা মামলায় আরো দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে তাদেরকে শ্যামনগর উপজেলার মুনসুর সরদারের গ্যারেজ ও কৃষ্ণনগর বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের হাজিরউদ্দিন বিশ্বাসের ছেলে ও কৃষ্ণনগর ১নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ রাজগুল বিশ্বাস (৪০) ও একই উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের শৈলেন্দ্রনাথ মন্ডলের ছেলে রণজিৎ মন্ডল (৩৫)। এনিয়ে ৪ জনকে গ্রেফতার করা হলো।
থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান হাফিজুর রহমান জানান, ইউপি চেয়ারম্যান কেএম মোশাররফ হোসেন হত্য্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী রণজিৎ মন্ডলকে বুধবার দুপুর ১২টার দিকে শ্যামনগর উপজেলার মুনসুর সরদারের গ্যারেজ এলাকা থেকে ও প্রায় একই সময়ে গ্রাম পুলিশ রাজগুল বিশ্বাসকে কৃষ্ণনগর বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার মোজাফফর বিশ্বাসের আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি অনুযায়ী কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন যুবলীগ অফিসের পাশে মঈনুদ্দিনের কম্পিউটার দোকানের শার্টারে লাগা গুলির খোসা লুকানোর অভিযোগ রয়েছে গ্রাম পুলিশ রাজগুলের বিরুদ্ধে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়া মঙ্গলবার গ্রেফতারকৃত খোকন ঢালীকে বুধবার সকালে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। মোজাফফর বিশ্বাসের দেয়া জবানবন্দি অনুযায়ী এজাহার বহির্ভুত প্রায় ৩০ জনকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় তাদেরকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে। এদিকে মামলার বাদী সাফিয়া পারভিন জানান, গ্রাম পুলিশ রাজগুল বিশ্বাস তার বাবার খুব কাছের মানুষ। তাকে গ্রেফতার করা ঠিক হয়নি। প্রসঙ্গত, গত ১০ সেপ্টেম্বর রাতে জাপা নেতা কৃষ্ণনগর ইউপি চেয়ারম্যান কেএম মোশাররফ হোসেনকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যার ঘটনায় তার বড় মেয়ে সাদিয়া পারভিন ১৯ জনসহ অজ্ঞাতনামা ২০ জনের নামে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় এ পর্যন্ত মোজাফফর বিশ্বাস, মণ্টু ঘোষ, খোকন ঢালী, রণজিৎ মন্ডল ও গ্রাম পুলিশ রাজগুলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মোজাফফর বিশ্বাস আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। মন্টু ঘোষকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়।