এবার নিউ ইয়র্কে স্বয়ংক্রিয় স্টোর খুলছে অ্যাম্যাজন

453

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটল-এ স্বয়ংক্রিয় স্টোর উন্মোচনের একদিন পরই নিউ ইয়র্ক সিটিতে আরেকটি ‘অ্যামাজন গো’ স্টোর খোলার ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন ই-কমার্স জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি।
নিউ ইয়র্কে স্টোর খোলার বিষয়টি প্রযুক্তি সাইট টেকক্রাঞ্চকে ইমেইল বার্তায় নিশ্চিত করেছে অ্যামজন।

ইমেইলে বলা হয়, “নিউ ইয়র্কে একটি অ্যামাজন গো খোলার পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের।” কবে নাগাদ এটি চালু করা হবে বা পরিকল্পনা নিয়ে বিস্তারিত কিছু জানায়নি প্রতিষ্ঠানটি।

সুপারমার্কেটে গিয়ে কেনাকাটায় ঝামেলা দূর করতে ২০১৬ সালে প্রথম এই স্বয়ংক্রিয় স্টোর উন্মোচন করে অ্যামাজন। ‘অ্যামাজন গো’ স্টোরে গিয়ে ক্রেতাদেরকে বিল পরিশোধের জন্য আর লম্বা সারিতে দাঁড়াতে হয় না। পুরো প্রক্রিয়াটি চলে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায়।

উন্নত প্রযুক্তির এই স্টোরে ঢুকে শুধু পছন্দের পণ্য নিয়ে নিলেই হবে। এজন্য কোনো চেকইন বা সারিবদ্ধ্ হয়ে মূল্য পরিশোধের প্রয়োজন নেই। এক্ষেত্রে গ্রাহক কী পণ্য নিচ্ছেন সেটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে শনাক্ত করা হবে এবং সেই মোতাবেক তার অ্যাকাউন্ট থেকে মূল্য কেটে নেওয়া হয়।

স্টোরে ঢোকার মুখে গ্রাহক একটি ইলেকট্রিক মেশিনে স্মার্টফোনের মাধ্যমে তার অস্তিত্ব জানান দেবেন। এক্ষেত্রে গ্রাহকের স্মার্টফোনের অ্যাপে একটি কিউআর কোড দেখানো হবে। প্রবেশ পথে এই কোডটি যাচাই করে গ্রাহককে শনাক্ত করা হবে।

একবার স্টোরে ঢোকার পর সেখানকার ক্যামেরাগুলো গ্রাহককে শনাক্ত করে তাকে ট্র্যাক করতে থাকবে। গ্রাহক তাক থেকে কোন পণ্য তুলছেন সেটিও নির্ণয় করা হবে এবং তা গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে কেনাকাটার তালিকায় যোগ হবে। এমনকি গ্রাহক যদি কোনো পণ্য তাক থেকে উঠিয়ে পুনরায় সেখানে রেখে দেন তবে সেটি তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হবে।

কেনাকাটা শেষে গ্রাহক স্টোর থেকে বের হওয়া মাত্রই তার স্মার্টফোনে কী কী পণ্য কেনা হয়েছে তার তালিকা দেখানো হবে এবং তার অ্যামাজন অ্যাকাউন্ট থেকে মূল্য কেটে নেওয়া হবে।

তাক থেকে কী কী পণ্য তোলা হচ্ছে সেটি সেন্সরের মাধ্যমে বের করা হবে এবং ক্যামেরার মাধ্যমে কে পণ্যটি তুলছেন তা শনাক্ত করা হবে বলে জানানো হয়।